সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশি পর্যটক বাড়ছে : রবার্টসন

এই লেখাটি 72 বার পঠিত
IMG_07012020_184544_(728_x_410_pixel)

সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশি ভ্রমণকারীর সংখ্যা বাড়ছে। প্রতিবছর ১০ শতাংশের বেশি যাত্রী বাড়ছে। এ কারণে দেশটির জাতীয় পতাকাবাহী বিমান সংস্থা সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনস ফ্লাইট বাড়াচ্ছে। ঢাকা-সিঙ্গাপুর রুটে আরামদায়ক ভ্রমণের জন্য প্রথমবারের মতো নতুন এয়ারবাস ‘এ৩৫০-৯০০ মডেলের মিডিয়াম হউল’ উড়োজাহাজে ফ্লাইট পরিচালনা করবে।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নতুন এই উড়োজাহাজের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে তুলে ধরেন সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের বাংলাদেশ মহাব্যবস্থাপক (জিএম) জর্জ রবার্টসন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন এয়ারলাইনসটির বাংলাদেশের বিক্রয় ও বিপণন বিভাগের প্রধান রিফাত কাদের, ঢাকা স্টেশন ম্যানেজার কে জে লিমসহ উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ঢাকা-সিঙ্গাপুর রুটে ‘এয়ারবাস এ৩৫০-৯০০ মডেলের মিডিয়াম হউল’ উড়োজাহাজে যাত্রী পরিবহন করবে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনস। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে প্রতিদিন ঢাকা-সিঙ্গাপুর-ঢাকা রুটে চলাচল করবে। এর বাইরে অন্য ফ্লাইটগুলোর উড়োজাহাজ আগের বোয়িং ৭৭৭ মডেলের উড়োজাহাজ থাকবে। এই ফ্লাইটগুলো সপ্তাহে তিন দিন (বুধ, বৃহস্পতি ও রবিবার) ঢাকা-সিঙ্গাপুর-ঢাকা রুটে চলাচল করবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ঢাকা থেকে এই মুহূর্তে অন্য কোনো এয়ারলাইনস এয়ারবাস এ৩৫০ মডেলের উড়োজাহাজে যাত্রী পরিবহন করছে না। সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনস প্রথমবারের মতো এই উদ্যোগ নিয়েছে। এই উড়োজাহাজে মোট আসন ৩০৩টি। এর মধ্যে ৪০টি বিজনেস ক্লাসের। ২৬৩টি ইকোনমি ক্লাসের। বৃহত্ পরিসরের এই এয়ারবাসে যাত্রীরা আরও বেশি সুবিধা ও স্বাচ্ছন্দ্য নিয়ে ভ্রমণ করতে পারবে বলে জানান এয়ারলাইনসটির কর্মকর্তারা।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জর্জ রবার্টসন বলেন, ‘বাংলাদেশে সিঙ্গাপুরে ভ্রমণকারীর সংখ্যা বাড়ছে। এ কারণে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনস প্রতি সপ্তাহে ১০টি ফ্লাইট অপারেট করছে। নতুন যে এয়ারবাসটি এই রুটে চলবে তা ভোরে সিঙ্গাপুরে পৌঁছাবে। ফলে ভ্রমণকারীরা পুরো দিনটা ভ্রমণ ও ঘোরার সময় পাবেন। এটা পর্যটকদের সাশ্রয় দেবে। ভাড়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ইকোনমি ক্লাসে ভাড়া ২৯ হাজার টাকার এবং বিজনেস ক্লাসে তা এক লাখ ২৫ হাজার মতো পড়বে।

তিনি বলেন, সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসটির বোর্ডিং কার্ড ব্যবহার করে চাঙ্গি এয়ারপোর্টসহ দেশটির বিভিন্ন শপিং মলে কেনাকাটায় নানা সুবিধা পাওয়া যাবে। এছাড়া কানেকটিং ফ্লাইটের যাত্রীদের জন্য ২৫ সিঙ্গাপুর ডলারের গিফট ভাউচার দেওয়া হবে যা দিয়ে চাঙ্গি এয়ারপোর্টে যাত্রীরা কেনাকাটা করতে পারবেন।

নতুন যে এয়ারবাসটি এই রুটে চলবে তা ভোরে সিঙ্গাপুরে পৌঁছাবে। ফলে ভ্রমণকারীরা পুরো দিনটা ভ্রমণ ও ঘোরার সময় পাবেন। এটা পর্যটকদের সাশ্রয় দেবে। ভাড়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ইকোনমি ক্লাসে ভাড়া ২৯ হাজার টাকার এবং বিজনেস ক্লাসে তা এক লাখ ২৫ হাজার মতো পড়বে।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ মহাব্যবস্থাপক জর্জ রবার্টসন আরো বলেন, নতুন এই এয়ারবাসটির বিজনেস ক্লাসের আসন বিন্যাস হলো ১-২-১, যেখানে সারি ও আসনের মধ্যে সরাসরি চলাচলের সুবিধা থাকবে। অন্যদিকে, ইকোনমি ক্লাসের আসন বিন্যাস হলো ৩-৩-৩। এ৩৫০-৯০০ মডেলের এয়ারবাসটিতে রয়েছে অত্যাধুনিক ‘থ্যালেস এভান্ট’ অভ্যন্তরীণ বিনোদন সিস্টেম। ভ্রমণকারীরা সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সের নতুন এই এয়ারবাসটিতে স্ব-নিয়ন্ত্রণে মাইক্রিসওয়ার্ল্ডের ইন ফ্লাইট এন্টারটেনমেন্ট (আইএফই) উপভোগ করতে পারবেন। ক্রিসফ্লাইয়ারের সদস্যরা কন্টেন্ট বুকমার্ক করে রাখতে পারবেন এবং পুনরায় সেই কনটেন্ট দেখা শুরু করতে পারবেন। এয়ারবাসটির অভ্যন্তরে ভ্রমণকালীন সময়ে ভ্রমণকারীরা উচ্চগতি সম্পন্ন ওয়াই-ফাই সুবিধা পাবেন। বিজনেস ক্লাস ভ্রমণকারীদের জন্য এয়ারক্র্যাফটটিতে রয়েছে ব্যক্তিগত সামগ্রী রাখার জন্য পর্যাপ্ত স্থান, আসনের সাথে সংযুক্ত পাওয়ার সাপ্লাই এবং ইউএসবি পোর্ট, এডজাস্টেবল রিডিং লাইট ইউনিট এবং ব্যক্তিগত ১৭ ইঞ্চির হাই-ডেফিনেশন টাচ স্ক্রীন মনিটর। এছাড়া ইকনোমি ক্লাসে ভ্রমণকারী যাত্রীদের জন্য রয়েছে ব্যক্তিগত সামগ্রী রাখার জন্য নিজস্ব জায়গা, একটি কোট হুক, আসনের সাথে সংযুক্ত পাওয়ার সাপ্লাই ও ইউএসবি পোর্ট।

Aviation News