৯৪৪ কোটি টাকা ব্যয়ে তিনটি উড়োজাহাজ কিনছে বিমান

এই লেখাটি 131 বার পঠিত

আকাশপথে যাত্রীদের সেবা বাড়াতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসে যুক্ত হচ্ছে আরও তিনটি উড়োজাহাজ। জিটুজির মাধ্যমে তিনটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ মডেলের উড়োজাহাজ কিনতে এ মাসেই কানাডার সঙ্গে চুক্তি করতে যাচ্ছে বিমান। চুক্তি স্বাক্ষরের এক বছর পর বিমানের বহরে যুক্ত হবে উড়োজাহাজগুলো।
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের প্রাপ্ত তথ্যমতে, সম্প্রতি কানাডার অ্যারোস্পেস অ্যান্ড ট্রান্সপোর্টেশন কোম্পানির তৈরি এই তিনটি উড়োজাহাজ কেনার অনুমোদন দিয়েছে সরকারের অর্থনৈতিক সংক্রান্ত ক্যাবিনেট কমিটি। ৭০ আসনের দুই ইঞ্জিনবিশিষ্ট টার্বোপ্রপ প্রতিটি উড়োজাহাজের দাম পড়বে তিন কোটি ১৩ লাখ ডলার বা প্রায় ২৬১ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। অর্থাৎ তিনটি উড়োজাহাজ কিনতে ব্যয় হবে প্রায় ৯৪৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকা।
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস লিমিটেড (বিমান) দেশের একমাত্র রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা। বর্তমানে বিমান ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, সৈয়দপুর, যশোর, বরিশাল ও কক্সবাজার অভ্যন্তরীণ রুটে এবং ঢাকা, কলকাতা, কাঠমান্ডু ও ইয়াংগুন আন্তর্জাতিক রুটে যাত্রী পরিবহন করছে। এসব রুটে পর্যাপ্ত যাত্রীসেবার সুযোগ থাকায় বিমান উড়োজাহাজ বহরে তিনটি ড্যাশ ৮কিউ-৪০০ এনজি বা এ ধরনের ৭০ আসনবিশিষ্ট টার্বোপ্রপ উড়োজাহাজ বিমানের নিজস্ব সম্পদ হিসেবে কেনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ও কানাডার অ্যারোস্পেস অ্যান্ড ট্রান্সপোর্টেশন কোম্পানির সঙ্গে জুলাই মাসের যে কোনো দিন এ-সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষরিত হতে পারে বলেও বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস সূত্রে জানা গেছে।
বিমান ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রী পরিবহনকে গুরুত্ব দিচ্ছে। আর এজন্যই ঝামেলাহীন ও নির্ঝঞ্ঝাটে অভ্যন্তরীণ রুটগুলো পরিচালনার স্বার্থে বিমানের বহরে আরও নতুন নতুন উড়োজাহাজ যোগ হচ্ছে।
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ বলেন, ‘আকাশপথে যাত্রীদের চাহিদা বাড়ছে। পাশাপাশি বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসে যাত্রীদের সেবার মান বাড়াতে নতুন নতুন উড়োজাহাজ যুক্ত করা হচ্ছে। উন্নত বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনার সক্ষমতা বাড়াতে বিমান একসঙ্গে তিনটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ উড়োজাহাজ কেনার চুক্তি করছে। কানাডা সরকারের সঙ্গে লেটার অব ইনটেন (এলওআই) স্বাক্ষর করা হয়েছে। এরপর চূড়ান্ত চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হবে। চুক্তি স্বাক্ষরের দিন থেকে এক বছরের মাথায় এই উড়োজাহাজে তিনটি সরবরাহ পাওয়া যাবে বলে আশা করছি।’
তিনি আরও বলেন, বহরে উড়োজাহাজ সংকট থাকলে অনেক সময় ফ্লাইট বিলম্ব হয়, এসব সমস্যা সমাধানে বিমান অগ্রসর। বহরে উড়োজাহাজ বেশি থাকলে নিয়মিত ফ্লাইটে প্রভাব পড়বে না বলেও জানান শাকিল মেরাজ।
উল্লেখ্য, বিমানের বহরে দুটি ড্যাশ৮ কিউ-৪০০ উড়োজাহাজ রয়েছে। মিশনের স্মার্ট এভিয়েশন কোম্পানির কাছ থেকে উড়োজাহাজ দুটি বিমানবহরে যুক্ত হওয়ার পর থেকেই বিভিন্ন সময়ে যান্ত্রিক ত্রুটিতে পড়ছে। অভ্যন্তরীণ রুটের উদ্বোধনী ফ্লাইটে প্রথম যান্ত্রিক ত্রুটি দিয়েই এর যাত্রা শুরু হয়েছিল। এর পর থেকে সময়ে সময়ে যান্ত্রিক ত্রুটিতে পড়ছে ড্যাশ৮ কিউ-৪০০ উড়োজাহাজ। লিজে আনা এই উড়োজাহাজের ভাড়া বাবদ বিমান কর্তৃপক্ষকে গুনতে হয় প্রতি মাসে এক লাখ ৬৮ হাজার মার্কিন ডলার। পাঁচ বছরের জন্য ২০১৫ সালে এ দুটি উড়োজাহাজ লিজ নেয় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। উড়োজাহাজ দুটি সাতটি অভ্যন্তরীণ ও দুটি আন্তর্জাতিক রুটে, অর্থাৎ কলকাতা ও কাঠমান্ডু রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। বর্তমানে উড়োজাহাজ দুটির লিজের মেয়াদও প্রায় শেষের দিকে। আর মেয়াদ শেষ হওয়ার ঠিক আগেই স্বল্প দূরত্বের রুটের জন্য বিমানের কয়েকটি উড়োজাহাজ আবশ্যক।

Aviation News