প্লেনের ইকোনোমি ক্লাসে চড়ে রাশিয়ায় যান ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্ট

এই লেখাটি 67 বার পঠিত

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কিংবা রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন কখনো চড়েছেন বিমানের ইকোনোমি ক্লাসে? কখনো কি গ্যালারিতে সাধারণ সমর্থকদের সঙ্গে বসে দলকে সমর্থন দিয়েছেন? সেই উত্তর হয়তো জানা নেই অনেকের। যেটা জানা, তা হলো এই কাজটি করেছেন ক্রোয়েশিয়ার প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট কোলিন্ডা গ্র্যাবার কিটারোভিচ। দলকে সমর্থন দিতে সুদূর ক্রোয়েশিয়া থেকে বিমানে চড়ে সাধারণ যাত্রীদের সঙ্গে রাশিয়া গিয়েছেন তিনি।

রাশিয়া বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার জয়রথ চলছেই। নাটকীয়তার কোয়ার্টার ফাইনালে শেষ পর্যন্ত নিজেদের বিজয় কেতন উড়িয়েছে দলটি। টাইব্রেকারে স্বাগতিক রাশিয়াকে ৪-৩ গোলে হারিয়ে ২০ বছর পর সেমিফাইনালে উঠেছে ক্রোয়েশিয়া।

দলের এমন আনন্দের মুহূর্ত মাঠে বসে দেখেছেন ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্ট কোলিন্ডা গ্র্যাবার কিটারোভিচও। শুধু তাই নয়, দলের সঙ্গে ড্রেসিংরুমেও জয় উদযাপন করেছেন নেচে-গেয়ে।

দল শেষ ষোলোয় ওঠার পরই উৎসাহ দিতে রাশিয়া যান কোলিন্ডা। ডেনমার্কের বিপক্ষে ম্যাচের কয়েক ঘণ্টা আগে বিমানের ইকোনোমি ক্লাসে করে রাশিয়ায় যান তিনি। বিমানে থাকা সাধারণ যাত্রীদের সঙ্গে সেলফি তুলে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে দিয়েছেন আপলোড।

নিজেকে অন্য সমর্থকদের থেকে আলাদা ভাবেন না কিটারোভিচ। তাই তো ক্রোয়েশিয়ার খেলা দেখতে তিনি বেছে নিয়েছিলেন সাধারণ দর্শকদের গ্যালারি।

কিটারোভিচ বলেন, ‘অন্যদের মতো আমিও ফুটবলের সমর্থক। তাই সাধারণ সমর্থকদের সঙ্গে গ্যালারিতে বসেই দলের খেলা দেখেছি। দলের জার্সি পরেই দলকে সমর্থন করতে চেয়েছিলাম। তাই ভিআইপি স্ট্যান্ডে বসে খেলা দেখিনি। কারণ সেখানে ড্রেস কোড রয়েছে; দলের জার্সি পড়ে খেলা দেখা গ্রহণযোগ্য হতো না।’

ফুটবলের সমর্থনে রাষ্ট্রপ্রধান পরিচয়ও আটকে রাখতে পারেনি কিটারোভিচকে। কোয়ার্টার ফাইনালে স্বাগতিক দেশ রাশিয়াকে হারানোর পর দলের খেলোয়াড়দের সঙ্গে খুশিতে মেতেছেন তিনি।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, দলের সঙ্গে নেচে-গেয়ে বিজয় উদযাপন করছেন ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্ট।

Aviation News