তিনটি উড়োজাহাজ কিনতে বিমান-কানাডা চুক্তি এ মাসে

এই লেখাটি 62 বার পঠিত

ঢাকা: কানাডার কাছ থেকে তিনটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ উড়োজাহাজ কিনতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সঙ্গে এ মাসেই চুক্তি হতে যাচ্ছে। উড়োজাহাজ তিনটি জিটুজি (গভর্মেন্ট টু গভর্মেন্ট) পদ্ধতিতে কেনা হচ্ছে। ৭০ আসনের দুই ইঞ্জিন বিশিষ্ট টার্বো প্রপ প্রতিটি উড়োজাহাজের দাম পড়বে ৩১.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

চুক্তি স্বাক্ষরের এক বছরের মাথায় উড়োজাহাজগুলো বিমানের বহরে যুক্ত হবে। এদিকে বিমান দীর্ঘ মেয়াদে আরো একটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ উড়োজাহাজ কেনার পরিকল্পনা করেছে বলে বিমান সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এবং কানাডার অ্যারোস্পেস এন্ড ট্রান্সপোর্টেশন কোম্পানির মধ্যে জুলাই মাসের তৃতীয় সপ্তাহে এ সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে।

বিমান ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রী পরিবহনকে গুরুত্ব দিচ্ছে। আর এজন্যই ঝামেলাহীন ও নির্ঝনঝাটভাবে অভ্যন্তরীণ রুটসমূহ পরিচালনার স্বার্থে বিমানের বহরে আরো নতুন নতুন উড়োজাহাজ যোগ হচ্ছে।

বিমানের জেনারেল ম্যানেজার (পিআর) শাকিল মেরাজ বলেন, অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রী বাড়ছে। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী এয়ারলাইন্স এক সঙ্গে এতগুলো ড্যাশ৮-কিউ৪০০ উড়োজাহাজ কেনার চুক্তি করছে। এতে করে অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রী সেবার মান যেমন বাড়বে, তেমনি বাড়বে বিমানের যাত্রী পরিবহন সক্ষমতা।

তিনি বলেন, বর্তমানের এয়ারলাইন্সের বহরে থাকা দুটি ড্যাশ৮ উড়োজাহাজের যেকোনো একটি গ্রাউন্ডেড হলে তখন অভ্যন্তরীণ রুটসমূহের প্রায় অর্ধেক ফ্লাইট বাতিল করতে হয়। যদি বহরে উড়োজাহাজ বেশি থাকে তাহলে এসব পরিস্থিতি সহজেই সামাল দেওয়া যাবে।

সম্প্রতি কানাডার অ্যারোস্পেস এন্ড ট্রান্সপোর্টেশন কোম্পানির তৈরি এই তিনটি উড়োজাহাজ কেনার অনুমোদন দিয়েছে সরকারের অর্থনৈতিক সংক্রান্ত কেবিনেট কমিটি।

সূত্র জানায়, বিমানের বহরে দুটি ড্যাশ৮ কিউ-৪০০ উড়োজাহাজ রয়েছে। মিশনের স্ম্যার্ট এভিয়েশন কোম্পানির কাছ থেকে উড়োজাহাজ দুটি বিমানের বহরে যুক্ত হওয়ার পর থেকেই বিভিন্ন সময়ে যান্ত্রিক ত্রুটিতে পড়ছে। অভ্যন্তরীণ রুটের উদ্বোধনী ফ্লাইটে প্রথম যান্ত্রিক ত্রুটি দিয়েই এর যাত্রা শুরু হয়েছিল। এরপর থেকে সময়ে সময়ে যান্ত্রিক ত্রুটিতে পড়ছে ড্যাশ৮ কিউ-৪০০ উড়োজাহাজ।

তাছাড়া লিজে আনা এই উড়োজাহাজের ভাড়া বাবদ বিমান কর্তৃপক্ষকে গুনতে হয় প্রতি মাসে ১,৬৮,০০০ মার্কিন ডলার অর্থ খরচ করতে হচ্ছে। ৫ বছরের জন্য রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী এয়ারলাইন্স ২০১৫ সাল এই দুটি উড়োজাহাজ লিজ নেয়। এই তিনটি উড়োজাহাজের লিজের মেয়াদও শেষের পথে। এর আগেই স্বল্প দূরত্বের রুটের জন্য বিমানের কয়েকটি উড়োজাহাজ আবশ্যক।

বর্তমানে বিমান এই দুটি উড়োজাহাজ দিয়ে সাতটি অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট পরিচালনা ছাড়াও কলকাতা ও কাঠমান্ডু রুটের যাত্রী পরিবহনে এই উড়োজাহাজ ব্যবহৃত হয়।

Aviation News