রাজশাহীর শাহ মখদুম বিমানবন্দর হবে আন্তর্জাতিক মানের: বিমানমন্ত্রী

এই লেখাটি 106 বার পঠিত

রাজশাহীর হযরত শাহমখদুম বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল। তিনি বলেছেন, বিমানবন্দরটিকে একটি পূর্ণাঙ্গ অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর এবং আমদািন-রপ্তানি কার্গো বিমান চলাচলের উপযোগী করার জন্য একটি প্রকল্প তৈরি করে তা অনুমোদনের জন্য সরকারের কাছে পেশ করা হবে।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহীতে সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা বলেন তিনি। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিমান মন্ত্রণালয়ের প্রতি খুবই আন্তরিক। যাত্রীদের চাহিদা মোতাবেক এই বিমানবন্দরে আরও বেশি বিমান চলাচলের ব্যবস্থা করা হবে।

মন্ত্রী তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, গত অর্থবছরে রাজশাহী বিমানবন্দরে ১২ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ করা হয়েছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরেও ৫৫ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ হাতে নেয়া হয়েছে। এজন্য রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়কে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে।

এর আগে বিমানবন্দরটির সম্প্রসারণ ও উন্নয়ন সম্পর্কিত এক পর্যালোচনা সভায় মন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন।

সেখানে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সুিধ সমাজের প্রতিনিধি এবং সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা বিমানবন্দরের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে তাকে অবহিত করেন।

সভায় রাজশাহী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, রাজশাহী অঞ্চল জঙ্গি প্রবণ এলাকা। তাই রাজশাহী বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করা প্রয়োজন। ফজলে হোসেন বাদশা বিমানবন্দরের রানওয়ে সম্প্রসারণ করে এটিকে দ্রুত আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করার জন্য মন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করেন।

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, রাজশাহী বিমানবন্দরে এখন প্রতিদিন তিনটি করে বিমান ওঠানামা করছে। তাও টিকেট পাওয়া যাচ্ছে না। তাই তিনি আরও বেশি সংখ্যক বিমান চলাচলের ব্যবস্থা করার জন্য মন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করেন।

লিটন বলেন, মানুষ ঢাকা থেকে সকালে আকাশপথে রাজশাহী আসবে, কাজ শেষে সন্ধ্যায় ফিরে যাবে। বিমানের সিডিউল এভাবে সাজাতে হবে।

সভায় রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক বলেন, রাজশাহীতে হাইটেক পার্ক হচ্ছে। তাই এখানে বিদেশীদের যাতায়াত বাড়বে। এ জন্য তিনিও কার্গো বিমান চলাচলের ব্যবস্থাসহ বিমানবন্দরটিকে আন্তর্জাতিক মানে গড়ে তোলার দাবি জানান। তিনি বলেন, বিমানবন্দরের উন্নয়ন হলে রাজশাহীতে কৃষি এবং শিল্পের বিকাশ ঘটবে।

সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য আক্তার জাহান বলেন, রাজশাহী থেকে হজ্ব ফ্লাইট পরিচালনা করা দরকার। এতে হজ্বযাত্রীদের ভোগান্তি কমবে। আর হজ্ব ফ্লাইট চালু করা গেলে ঢাকা থেকে রাজশাহী হয়ে কোলকাতা পর্যন্ত বিমানও চালু করা সম্ভব। সপ্তাহে তিনদিন এমন ফ্লাইট এখন খুব প্রয়োজন।

সভায় সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল নাইম হাসানও উপস্থিত ছিলেন। তিনি রাজশাহী বিমানবন্দর নিয়ে নানা উন্নয়ন পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। বলেন, স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সহায়তা পেলে জমি অধিগ্রহণ করে বিমানবন্দরের রানওয়ে সম্প্রসারণ করা হবে। সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক এসএম আবদুল কাদের।

সূত্র: ঢাকাটাইমস

Aviation News