ভাঙ্গায় ছেলের হাতে বাবা খুন!

এই লেখাটি 68 বার পঠিত

ভাঙ্গায় ছেলের হাতে বাবা খুন।
ফরিদপুরের ভাঙ্গায় পারিবারিক কলহের জেরে ছেলের ছুরিকাঘাতে বাবা আক্কাচ শিকদার (৫৫) খুন হয়েছেন। সোমবার রাতে আজিমনগর ইউনিয়নের ব্রাক্ষণপাড়া গাবতলি বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
নিহত আক্কাচ শিকদার খুন হয়েছে। সোমবার রাত ৯টার সময়ে বাবা-ছেলে কথাকাটাকাটির সময়ে ঘাতক ছেলে বাবার গলায় চাকু দিয়ে আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। বাবাকে বাঁচাতে গ্রাম্য চিকিৎসক আয়নাল এগিয়ে এলে তাকেও কুপিয়ে আহত করে পালিয়ে যায়। পুলিশ রাতেই লাশ উদ্ধার করে মঙ্গলবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য ফরিদপুর মর্গে প্রেরণ করেছে ।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, আক্কাচ শিকদার তিনটি বিয়ে করেন। প্রথম স্ত্রী তাহেরুন বেগমের ২ ছেলে ও ১ কন্যা থাকার পর দ্বিতীয় স্ত্রী শাহিদাকে বিয়ে করলে সেখানেও ২ ছেলে ও ১ কন্যাসন্তানের জম্ম হয়। তারপরও আক্কাচ শিকদার ২ জন স্ত্রীকে রেখে আবারও তিনি জেসমীন নামে আরেকজনকে বিয়ে করেন। সেখানেও তার ১ ছেলে ও ১ কন্যাসন্তান রয়েছে।
প্রথম ও দ্বিতীয় স্ত্রী সন্তান নিয়ে যার যার বাবার বাড়ি বসবাস করেন। আক্কাচ শিকদার ছোট স্ত্রীকে নিয়ে গাবতলী বাসস্ট্যান্ডে মুদি দোকান এবং অটোগাড়ি চালিয়ে সংসার চালান।
রোববার সন্ধ্যায় ছেলে সাহাবুদ্দিন (২২) বাবা আক্কাচকে ফোন করলে তিনি রিসিভ না করে মোবাইল বন্ধ করে দেন। সোমবার রাতে সাহাবুদ্দিন এসে বাবাকে মোবাইল না ধরার কারণ জিজ্ঞাসা করলে উভয়ের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয় এবং বাবার গলায় চাকু ঢুকিয়ে দেন।
ভাঙ্গা থানার ওসি কাজী ছাইদুর রহমান জানান, আক্কাচ শিকদারের ৩টি সংসারেই ছেলেমেয়েরা বড় হয়েছে। বাবা প্রথম দুই স্ত্রী-সন্তানের খোঁজখবর ভরণপোষণ দিত না। এই জন্যই সন্তানের ক্ষোভ রয়েছে।
এ ঘটনায় নিহতের ছোট স্ত্রী জেসমীন বাদী হয়ে সাহাবুদ্দিনসহ ৫ জনকে আসামি করে ভাঙ্গা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

Aviation News