ঈদের উচ্ছ্বাসে মুখরিত কুয়াকাটা

এই লেখাটি 56 বার পঠিত

বৈরী আবহাওয়াকে উপেক্ষা করে ঈদুল ফিতরের ছুটিতে হাজারো উচ্ছসিত দেশী-বিদেশী পর্যটকদের পদচপরনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের বেলাভূমি সাগরকন্যা কুয়কাটা। পর্যটকদের অতিথিয়েতা দিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন পর্যটন সংশ্লিস্ট ব্যবসায়ীরা। দর্শনীয় স্থানসহ পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমনে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করেছে টুরিস্ট পুলিশ।

শুধু পর্যটন মৌসুম নয় এখন সারা বছরই পর্যটকদের পদচারনায় মুখরিত থাকছে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের বেলাভূমি সাগরকন্যা কুয়কাটা। বিভিন্ন উৎসব এবং ছুটির দিনগুলোতে পর্যটকদের এ উপস্থিতি যায় আরো বেড়ে। এরই ধারাবাহিকতায় বৈরি আবহাওয়াকে উপেক্ষা করে ঈদের দু’দিন আগে বুধবার থেকেইে কুয়াকাটায় সমাগম ঘটেছে হাজারো পর্যটকের। ফাতরার বন, বাউলি বন, লেবুর বন, চর গ্গংামতি, বৌদ্ধ মন্দিরসহ বিভিন্ন দর্শণীয় ভ্রমনে মুগ্ধ এসব পর্যটক।

অগনিত পর্যটকের পদভারে মুখরিত এখন কুয়াকাটা। ভ্রমণ পিপাসু পর্যটকদের বিচরনে সুর্যোদয়-সূর্যাস্তের বেলাভূমি খ্যাত সাগর কন্যা কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকত এখন উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। কুয়াকাটার রাখাইন মার্কেট, ঝিনুক শপ, রেঁেস্তারা, চটপটি, ফুচকা, ভুট্রা, বাদাম বিক্রীর ভাসমান ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলোতেও চলছে কেনাকাটার ধুম।

কুয়াকাটার জাতীয় উদ্যান, ইলিশ পার্ক, শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধ বিহার, সীমা বৌদ্ধ বিহার, সুন্দরবনের পূর্বাঞ্চল খ্যাত ফাতরার বনাঞ্চল, ফকির হাট, গঙ্গামতি, কাউয়ার চর, লেম্বুর চর, শুঁটকি পল্লী ও কুয়াকাটার জিরো পয়েন্ট এখন শিশু কিশোর যুবক যুবতী সহ নানা বয়সী পর্যটকদের পদচারনায় মুখরিত। কুয়াকাটায় বেড়াতে আসা নানা বয়সী পর্যটকরা তাদের স্মার্ট ফোনে কুয়াকাটার সেলফি ও ভিডিও ক্লিপস সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছে। পর্যটক ও দর্শনার্থীদের নিরাপত্তায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের টহল অব্যাহত রয়েছে।

খুলনা থেকে ভ্রমনে আসা দম্পতি মনজুরুল হোসাইন ও শম্পা জানান, সন্ধ্যার পর সৈকতে বেি তে বসে রাতের সমুদ্র ও তার বিক্ষুব্দ গর্জন অসাধারণ লেগেছে। কুয়াকাটার দর্শনীয় স্পট গুলোর অপরূপ দৃশ্য সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ঘুরে দেখেছি। তবে বিদ্যুতের লোড শেডিংয়ের কারনে ছেলে-মেয়েরা হোটেলে একটু অস্বস্তি বোধ করেছে। এছাড়া কলাপাড়া-কুয়াকাটা সড়কের পাখীমারা থেকে আলীপুর ১১ কি.মি. অংশের ভয়াবহ অবস্থা, যা কুয়াকাটার উন্নয়নের স্বার্থে দ্রুত সংস্কার করা জরুরী।

হোটেল-মোটেল মালিক সমিতি’র সভাপতি শাহ-আলম জানান, ঈদের ছুটিতে কুয়াকাটায় পর্যটকের ঢল নেমেছে। ঈদের পরদিন থেকে কুয়াকাটায় আগাম বুকিং অনুযায়ী পর্যটক রয়েছে। প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও প্রায় অর্ধলক্ষাধিক পর্যটকের সমাগম ঘটেছে। তাদের পূর্ন আতিথেয়তা দিতে প্রস্তত তারা। কুয়াকাটা ইলিশ পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রুমান ইমতিয়াজ তুষার জানান, ঈদ-উল-ফিতরের ছুটিতে পর্যটকদের ভিড় রয়েছে। আমরাও চেষ্টা করছি পর্যটকদের নিরাপত্তা সহ বিনোদন নিশ্চিত করতে।

টুরিস্ট পুলিশ, কুয়াকাটা জোন’র এসআই নজরুল ইসলাম জানান, পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমনসহ নিরাপত্তায় টুরিস্ট পুলিশ, নৌ-পুলিশ, জেলা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের রেসকিউ টিমের সহায়তায় গড়ে তোলা হয়েছে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

Aviation News