৪ টাকায় মিলছে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের মালিকানা !

এই লেখাটি 178 বার পঠিত

শেয়ারবাজারে তালিকাভূক্ত ২৪২টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে সর্বনিম্ম শেয়ার দরের রেকর্ড করেছে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ লিমিটেড। ৪ টাকায় মিলছে এখন কোম্পানিটির মালিকানা। এক সময়ে লাভে থাকা ভ্রমণ ও অবকাশ খাতের এই কোম্পানিটির প্রতিটি শেয়ার বর্তমানে ৪ টাকায় লেনদেন হচ্ছে। শেয়ারবাজারের যে কোনো বিনিয়োগকারী চাইলেই এই টাকায় শেয়ার কিনে কোম্পানিটির ক্ষুদ্র্র মালিক হতে পারবেন।

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে জানা গেছে, গত দুই বছরের মধ্যে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের শেয়ার দর ৮ টাকার উপরে ওঠেনি। ১০ টাকার শেয়ার ৪ টাকায় নেমে এলেও মিলছে না ক্রেতা। চরম অস্তিত্ব সংকটে পড়া ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ এখন শুধু নামেই টিকে আছে।

সর্বশেষ সমাপ্ত অর্থবছরে (৩০ জুন ২০১৭) প্রতিষ্ঠানটির লোকসান হয়েছে ১৩৯ কোটি ১২ লাখ ৫ হাজার ৪৪৬ টাকা। এর বিপরীতে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ১.৬৮ টাকা। এর আগের বছরের একই সময়ে লোকসান হয়েছিল ১৩৭ কোটি ৪৬ লাখ ৪৩ হাজার ৪৭৬ টাকা এবং শেয়ারপ্রতি লোকসান ছিল ১.৬৬ টাকা। লোকসানের ধারাবাহিকতায় দুই বছর ধরে বিনিয়োগকারীদের কোনো লভ্যাংশ দিচ্ছে না কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

এদিকে চলতি অর্থবছরের সর্বশেষ প্রকাশিত প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই- সেপ্টেম্বর’ ১৭) লোকসান দাঁড়িয়েছে ২৮ কোটি ৩৬ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ০.৩৪ টাকা।

ডিএসই সূত্রে আরও জানা গেছে, সম্প্রতি ইনসাইডার ট্রেডিংয়ের দায়ে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের ৭ পরিচালককে ১০ লাখ টাকা করে এবং খন্দকার তাসলিমা চৌধুরীকে ২০ লাখ টাকা জরিমানা করেছে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

তথ্যমতে, ২০১০ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ইউনাইটেড এয়ার। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির পরিশোধিত মূলধন ৮২৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে উদ্যোক্তা পরিচালকদের কাছে ৪.১৬ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ১৩.৫০ শতাংশ, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে ১২.১৮ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ৭০.১৬ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

এর আগে ২০১১ সালে রাইট শেয়ার ছেড়ে শেয়ারবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহ করে কোম্পানিটি। পরবর্তীতে আবারও রাইট শেয়ার ছেড়ে অর্থ তুলতে চেয়েছিল। কিন্তু উদ্যোক্তাদের ৩০ শতাংশ শেয়ার না থাকায় অনুমতি দেয়নি বিএসইসি। এখন রাষ্ট্রায়াত্ব একটি ব্যাংকের কাছ থেকে ঋণ নেয়া্র প্রক্রিয়ায় রয়েছে বলে কোম্পানি সূ্ত্রে জানা যায়।

শেয়ারবার্তা.কম

Aviation News