২৫০০ টাকার বিমান ভাড়া ৮২০০!

এই লেখাটি 98 বার পঠিত

ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে সাধারণ সময়ে সর্বনিম্ন বিমান ভাড়া আড়াই হাজার টাকা। কিন্তু ঈদুল ফিতরের ছুটিকে কেন্দ্র করে সেই ভাড়া তিন গুণ বেড়ে আট হাজার ২০০ টাকা হয়েছে। ঈদুল ফিতরের সরকারি ছুটি শুরু হচ্ছে আগামী ১৪ জুন। সড়ক ও রেলপথের মতো আকাশপথেও সেদিন ক্রেতাদের টিকিট কেনার চাপ সবচেয়ে বেশি। এই বাড়তি চাপের কারণে টিকিটের দাম বাড়ছে বলে জানালেন সংশ্লিষ্টরা।

ঈদে বাড়ি যেতে সড়ক ও রেলপথের টিকিট না পেয়ে এখন অনেকে আকাশপথে ঝুঁকছেন। আবার সড়কে যানজট এড়াতেও আকাশপথ বেছে নিচ্ছেন কেউ কেউ। এই বাড়তি চাপের কারণে আগামী ১৪ জুন রাষ্ট্রীয় বাংলাদেশ বিমানের টিকিট বিক্রি শেষ। বাকি দেশিয় তিনটি বেসরকারি বিমান সংস্থার টিকিট বিক্রিও প্রায় শেষ। সময় যত ঘনিয়ে আসছে টিকিটের দাম আরো বাড়ছে।

দাম বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে অন্যতম শীর্ষ ট্রাভেল এজেন্সি উই কেয়ারের প্রধান নির্বাহী শেখ মেহেদি হাসান বলেন, ‘ঈদের ছুটিকে কেন্দ্র করে ন্যূনতম দামের টিকিট রমজানের প্রথম সপ্তাহেই বিক্রি হয়ে গেছে। এখন শেষমুহূর্তে যাঁরা বাড়ি যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন তাঁদেরকে বাড়তি দামেই টিকিট কিনতে হচ্ছে। ঈদের সময় যত কাছে আসবে টিকিটের দামও তত বাড়বে।’

ঈদ উপলক্ষে বাংলাদেশ বিমান চট্টগ্রাম-ঢাকা রুটে বিশেষ কোনো ফ্লাইট চালু করেনি। তবে রমজানের শুরুতে তারা এই রুটে ২ হাজার টাকার বিশেষ অফার দিয়েছিল। বর্তমানে এই রুটে তাদের সর্বনিম্ন ভাড়া ২ হাজার টাকা থেকে ২৩০০ টাকা। এই রুটে ১৪ জুন তাদের তিনটি ফ্লাইট রয়েছে। কিন্তু রমজানের ১৫ তারিখেই তাদের সব টিকিট বিক্রি শেষ।

জানতে চাইলে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ বলেন, ‘প্রতিযোগিতামূলক ভাড়া নেওয়ায় আমাদের টিকিট বিক্রি সবার আগেই শেষ। ১৪ জুন আমাদের কোনো টিকিট অবিক্রিত নেই। তবে আগে-পরের এখনো আছে।’

বিমান সংস্থাগুলোর তথ্যমতে, চট্টগ্রাম-ঢাকা রুটে ইউএস বাংলা এয়ারলাইনস ৪টি ফ্লাইট রয়েছে। সাধারণ সময়ে এই রুটে তাদের সর্বনিম্ন ভাড়া ছিল আড়াই হাজার টাকা। কিন্তু ১৪ জুন একমুখি রুটে ৮ হাজার ২০০ টাকার নিচে টিকিট মিলছে না। তাদের বিজনেস ক্লাসের ভাড়া ৯ হাজার ২০০ টাকা! তবে চট্টগ্রাম-ঢাকা রুটে এখনো আড়াই হাজার দামের টিকিট মিলছে।

বেসরকারি শীর্ষ বিমান সংস্থা রিজেন্ট এয়ারওয়েজ বোয়িং ৭৩৭ ৮০০ সিরিজের বিমানে চট্টগ্রাম-ঢাকা রুটে পাঁচটি ফ্লাইট চালাচ্ছে। এই রুটে তাদের বিশেষ ভাড়া ছিল আড়াই হাজার টাকা আর সর্বনিম্ন ২৭০০ টাকা। তাদের একমুখি ভাড়া ৬ হাজার ৯০০ টাকায় উন্নীত হয়েছে। যদিও অন্য বিমান সংস্থার চেয়ে রিজেন্ট এয়ারে এখনো কিছুটা কমদামে টিকিট মিলছে। জানা গেছে, চট্টগ্রাম-ঢাকা রুটে ১৪ জুন বেসরকারি নভো এয়ারের চারটি ফ্লাইট রয়েছে। তাদের টিকিট বিক্রিও প্রায় শেষ। এই রুটে তাদের সর্বনিম্ন বিমান ভাড়া ছিল ১৫০০ টাকা। কিন্তু সেই ভাড়া বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ হাজার ৮০০ থেকে ৮ হাজার ২০০ টাকায়।

কেন এমন হয় জানতে চাইলে নভো এয়ারের মহাব্যবস্থাপক (মার্কেটিং) এ কে এম মাহফুজ আলম বলেন, ‘এটা আসলে সময় ও যাত্রী চাহিদার ওপর নির্ভর করে। আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত একটি সফটওয়্যার এটি ক্যালকুলেট করে। এখানে আমাদের ম্যানিপুলেশনের কোনো সুযোগ নেই।’ তিনি বলেন, ‘একই দিন দেখবেন ফ্লাইট সকালে এক ধরনের ভাড়া সন্ধ্যায় এক ভাড়া। ১৪ জুন যেহেতু যাত্রীর চাহিদা বেশি সুতরাং সেজন্য কমদামের টিকিটগুলো আগে বিক্রি হয়ে গেছে। বেশি দামের টিকিট রয়েছে। সময় যত কাছে আসবে সেগুলো বিক্রি হয়ে যাবে।’

Aviation News