এবারও হজ ফ্লাইটে শিডিউল বিপর্যয়ের আশঙ্কা !

এই লেখাটি 153 বার পঠিত

এবারও হজ ফ্লাইটে শিডিউল বিপর্যয়ের আশঙ্কা।
হজ মৌসুমে ফ্লাইট শিডিউল ঠিক রাখতে লিজে আনা হচ্ছে আরও ৪টি উড়োজাহাজ। এ বছর হজ মৌসুমে ১৫১টি হজ ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। হজ এজেন্সিগুলো আগে থেকে ফ্লাইট বুকিং না দিলে এবং যথাসময়ে হজযাত্রীদের ফ্লাইটে না পাঠালে এবারও হজ ফ্লাইটের বিপর্যয় হতে পারে বলে মনে করছেন তারা।
সূত্র জানায়, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্সের ঘোষিত ফ্লাইট সিডিউল অনুযায়ী ২০ মে’র মধ্যে ফ্লাইট বুকিং সম্পন্ন করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল হজ কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী সব এজেন্সিকে। বুকিং সম্পন্ন করার পর এয়ারলাইন্সগুলোর কাছ থেকে প্রত্যয়নপত্র সংগ্রহ করে হজ অফিসে জমা দিতে বলা হয়। গত ৯ মে এই নির্দেশনা দেওয়া হলেও ২০ মে’র মধ্যে প্রত্যয়নপত্র জমা দিতে পারেনি হজ এজেন্সিগুলো।
বিমান বাংলাদেশের এক কর্মকর্তা জানান, হজ ফ্লাইট পরিচালনার ক্ষেত্রে আমাদের নানামুখী চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। প্রতি বছর নানা রকমের জটিলতার সম্মুখীন হতে হয়। বিশেষ করে- হজ এজেন্সিগুলো ঠিক মতো যাত্রীদের বাড়িভাড়া ঠিক করে ফ্ল্যাট বুকিং দিলে জটিলতা কমে আসে। তবে এই মুহূর্তে হজ এজেন্সিগুলোর ঠিক সময়ে ফ্লাইট বুকিং দেওয়া নিয়েই শঙ্কা কাজ করছে বলেও জানান তিনি।
বাংলাদেশ বিমান সূত্রে জানা গেছে, মোট ৬৪ হাজার ৫৯৯ জন হজযাত্রী পরিবহন করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। হজ যাত্রীদের সৌদি আরবে পাঠাতে ১৫১টি ডেডিকেটেট ফ্লাইট এবং হজ শেষে দেশে ফিরিয়ে আনতে ১৪৩টি হজ ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। ঢাকা থেকে বিমান বাংলাদেশের হজ ফ্লাইট শুরু হবে ১৪ জুলাই এবং ফ্লাইট শেষ হবে ১৪ আগস্ট। হজ শেষে ফিরিয়ে আনতে সৌদি আরব থেকে ফ্লাইট শুরু হবে ২৭ আগস্ট, শেষ হবে ২৫ সেপ্টেম্বর।
জানা যায়, সৌদি আরবের নিয়ম অনুসারে হজ ফ্লাইট বুকিং এর নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী প্রত্যেক হজ যাত্রীর জন্য সৌদি আরবে (মক্কা ও মদীনায়) বাড়ি ভাড়া, পরিবহন ও অন্যান্য সার্ভিস চার্জ অগ্রিম প্রদান করতে হয়। সেসব কাজ সম্পন্ন করে হজ ভিসার জন্য আবেদন করতে হয়। ভিসাছাড়া কেউই হজের জন্য সৌদি আরবে যেতে পারবেন না। বিগত বছরগুলোতে হজ এজেন্সিগুলো হজযাত্রীদের বাড়ি ভাড়া ও অন্যান্য চার্জ অগ্রিম বুকিং না করায় ঠিক সময়ে ভিসার ব্যবস্থা হয়নি, তাই বিলম্বিত হয়েছে হজ ফ্লাইট।
হজ এজেন্সিগুলো জানিয়েছে, হজ ফ্লাইটের শিডিউল এখনও সৌদি আরব চুড়ান্ত অনুমোদন দেয়নি, যার কারণে তারা ফ্লাইট বুকিং দিতে পারেননি। এয়ারলাইন্সগুলোর সঙ্গে আলাপ করে আমরা এ সময়সীমা আবারও নির্ধারণ করবো।’

Aviation News