এয়ারলাইন্স অপারেটরদের দাবি বিবেচনার আশ্বাস মুহিতের

এই লেখাটি 87 বার পঠিত

বেসরকারী এয়ারলাইন্সগুলোর ট্যাক্স হলিডে, শুল্ক জটিলতা ও তেলের অস্বাভাবিক দামসহ যৌক্তিক দাবিগুলো বিবেচনায় বাজেটের আগেই কিছু ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। মঙ্গলবার এয়ারলাইন্স অপারেটর এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (এওএবি) নেতৃবৃন্দের সঙ্গে এক বৈঠকে তিনি এ আশ্বাস দেন। এ সময় এওএবি সভাপতি অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু ও এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ আশীষ রায় চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে অস্বাভাবিক শুল্ক আদায় ও তেলের দামের অস্বাভাবিকতার কথা তুলে ধরলে অর্থমন্ত্রী তাদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেন। অঞ্জন চৌধুরী অর্থমন্ত্রীকে বলেন, আমরা সরকারের কাছে আর্থিক সাহায্য চাই না। আন্তর্জাতিক এভিয়েশন রুলস অনুযায়ী অন্য দেশের এয়ারলাইন্সগুলো যেভাবে রাষ্ট্রের আনুকূল্য পায়, যেভাবে শুল্ক সুবিধা পায় ন্যূনতম সেগুলোই চাই। যেমন এভিয়েশনের যে কোন যন্ত্রাংশ আমদানি করার সময়ে এইচএস কোড অনুযায়ী শুধু শুল্ক পরিশোধ করতে দিলে, তেলের দামে সামঞ্জস্য রক্ষা, ব্যাংক গ্যারান্টির মাধ্যমে তেল কেনার সুযোগ, সারচার্জের নামে অযৌক্তিক জরিমানা প্রত্যাহার ও এরোনটিক্যাল চার্জ সহনীয় করে নেয়া হলেই বাংলাদেশে বেসরকারী খাতে এয়ারলাইন্স বিকশিত হবে। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত তাদের এ বক্তব্য ধৈর্যের সঙ্গে শোনেন।

বিশেষ করে আন্তর্জাতিক বাজারের তুলনায় জেট ফুয়েলের দাম বাংলাদেশে এত বেশি হওয়ার বিষয়টি তার কাছে বেশ অস্বাভাবিক বলেই মনে হচ্ছে। তিনি এওএবি নেতৃবৃন্দকে আশ্বস্ত করেন আগামী বাজেটের আগেই এসব ইস্যু নিয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগের সঙ্গে কথা বলে ইতিবাচক পদক্ষেপ নেয়ার জন্য আন্তরিকভাবে চেষ্টা করবেন।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ইউএস বাংলার এয়ার কমোডর তৌহিদুর রহমান ও মেঘনা এভিয়েশানের এয়ারকমোডর ইকবাল।

Aviation News