এবছর সৌদি আরবে হজ বয়কটের ডাক ওলামাদের

এই লেখাটি 69 বার পঠিত
ha

এবছর সৌদি আরবে হজ বয়কটের ডাক ওলামাদের।

প্রতি বছর হজ পালনের জন্য প্রায় ২০ লাখ মানুষ সৌদি আরবের মক্কা ও মদিনা সফর করেন৷ কিন্তু আরব উপদ্বীপে সংঘাত এবং রিয়াদের নতুন প্রশাসনের সঙ্গে মতানৈক্য়ের ফলে এবছর হজ বয়কটের আহ্বান জানিয়েছেন বিভিন্ন মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশের ওলামারা৷ খবর ডয়েচে ভেলের।

লিবিয়ার গ্র্যান্ড মুফতি সাদিক আল-ঘারিয়ানি ফতোয়া দেন, যেসব মুসলিম দ্বিতীয়বারের মতো হজ করতে যাবেন, তারা ‘পুরস্কারের বদলে পাপের ভাগীদার’ হবেন৷
আল আরাবি সংবাদপত্রে আল-ঘারিয়ানিকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, ‘হজ করতে যাওয়া মানে অন্য এক মুসলিম ভাইয়ের বিরুদ্ধে অপরাধ করতে সৌদি আরবকে সহায়তা করা’৷

তেলক্ষেত্র বাদ দিলে সৌদি আরবের বার্ষিক আয়ের সবচেয়ে বড় খাত হজ। বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল-সৌদের আমলে রিয়াদ সরকার তেল-গ্যাস থেকে নির্ভরতা কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ফলে, খুব শিগগিরই পর্যটন ও হজই দেশটির আয়ের সবচেয়ে বড় খাতে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে৷

কিন্তু শুরু থেকেই সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে ব্যাপক বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে৷ এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ইয়েমেনে সাধারণ মানুষের ওপর হামলার ঘটনা এবং তুরস্কে সৌদি দূতাবাসে মার্কিন সাংবাদিক জামাল খাশোগজির হত্যা৷

এছাড়া বিভিন্ন সময়ে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ ইয়েমেন, লিবিয়া, সুদান, টিউনিশিয়া ও আলজেরিয়ায় অভিযান চালিয়েছে সৌদি সমর্থিত সেনাজোট৷

মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচের তথ্যমতে, ইয়েমেনে চার বছর ধরে যুদ্ধে অন্তত ৭০ হাজার মানুষ মারা গেছেন, প্রায় দেড় কোটি মানুষ আছেন দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে৷ সৌদি নেতৃত্বে সামরিক জোট প্রায়ই ইয়েমেন জুড়ে চালাচ্ছে বিমান হামলা৷

জাতিসংঘের আশংকা, এই যুদ্ধ চলতে থাকলে ২০২০ সালের মধ্যে দুই লাখ ৩০ হাজার মানুষের মৃত্যু ঘটবে৷ এর মধ্যে এক লাখের বেশি সরাসরি হামলায় এবং আরো এক লাখ ৩০ হাজার মানুষ মারা যাবেন রোগ ও ক্ষুধায় ভুগে৷

এই পরিপ্রেক্ষিতে টিউনিশিয়ার ওলামা কাউন্সিল দেশটির গ্র্যান্ড মুফতিকে আহ্বান জানিয়েছে হজ বয়কটের ফতোয়া দিতে৷

দৈনিক আল-বাওয়াবা পত্রিকাকে দেশটির সিনিয়র ইসলামবিদ ফাদেল আশুর জানিয়েছেন, ‘‘গত বছর হজ থেকে পাওয়া অর্থ বিশ্বের দরিদ্রদের কল্যাণে ব্যয় করা হয়নি৷ বরং এই টাকা কাজে লাগানো হয়েছে ইয়েমেনের নাগরিকদের হত্যায়৷”

এর আগেও কয়েকবার হজ বয়কটের আহ্বান জানানো হলেও তা ছিল মূলত শিয়া-সুন্নি বিভক্তি থেকে৷ কিন্তু আবারই প্রথম সৌদি রাজত্বের সঙ্গে রাজনৈতিক বিবাদের কারণে এমন জোরেসোরে নড়ে বসতে দেখা গেলো মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোকে৷

২০১৭ সালে আঞ্চলিক ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ে কাতারকে কোনঠাসা করার চেষ্টা করে সৌদি আরব৷ সেসময় মুসলিম ব্রাদারহুডের এক সদস্য ইউসুফ কারাদাওয়ি বলেছিলেন, ‘‘যেসব মুসলিম গরীবকে খাওয়ায়, বাসস্থানের ব্যবস্থা করে, প্রতি বছর হজ পালনকারীদের চেয়ে তাঁরা বেশি সওয়াবের ভাগীদার হন৷”

Aviation News