ফুলবাড়ীতে বিজিবি ও মাদক চোরাকারবারীদের মধ্যে সংঘর্ষঃআহত তিন বিজিবি সদস্য

এই লেখাটি 38 বার পঠিত

ফুলবাড়ীতে বিজিবি ও মাদক চোরাকারবারীদের মধ্যে সংঘর্ষঃআহত তিন বিজিবি সদস্য।
ফুলবাড়ী সীমান্তে গভীর রাতে বিজিবির ও মাদক চোরাকারবারীদের মধ্যে সংঘর্ষে তিন বিজিবি সদস্য আহত হয়েছেন।
আত্মরক্ষার জন্য বিজিবি এ সময় এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে। উত্তেজিত জনতা ছত্রভঙ্গ হলেও বিজিবির রাইফেলের ট্রেগার গার্ড ও সরকারি মোঠো ফোন ছিনতাই করে নেয়। এ ঘটনায় আটক করা হয়েছে দুইজনকে। দীর্ঘ সময় ধরে অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করা হয়েছে রাইফেলের ট্রেগার গার্ড ও সরকারী মোবাইল ফোন। আহত তিন বিজিবি সদস্যকে ফুলবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে ওই এলাকায়। মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত বিজিবি।
লালমনিহাট ১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধীণ কাশিপুর কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার সহিদ আলী জানান, অনন্তপুর ক্যাম্পের হাবিলদার সোবহান গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একদল বিজিবির সদস্য নিয়ে আর্ন্তজাতিক মেইন পিলার নং ৯৪৮ থেকে ১শ গজ বাংলাদেশের অভ্যান্তরে বেড়াকুটি ভেল্লির তোল এলাকায় অবস্থান নেন। এ সময় ওই এলাকা দিয়ে মোফাজল হোসেন মোফা ও এমদাদুল হককে রাস্তায় দেখে আটক করে জিজ্ঞাসা বাদ করেন । এতে উভয়ের মধ্যে বাগবিতান্ডার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে আটক দুই ব্যক্তি উত্তেজিত হয়ে চিৎকার দিলে তাৎক্ষনিক ভাবে অর্ধশতাধিক লোকজন জড়ো হয়ে বিজিবিকে ঘেড়াও করে। পরে বিজিবিকে লক্ষ্য করে উত্তেজিত জনতা অর্তকিত ভাবে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে । এতে গুরুতর আহত হয়েছেন বিজিবির তিন সদস্য । হাবিলদার ছোবহান আত্মরক্ষার জন্য এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে ।
তিনি আরও জানান, ১৫ বিজিবি আসার পর থেকে সীমান্তে মাদক ব্যবসায়ীর আতংকে আছে। বিজিবি কট্টর ভাবে সীমান্তে অবস্থান করার কারণে মাদক ব্যবসায়ীর আগের মত ব্যবসা পরিচালনা করতে পারছে না। কয়েক দিন আগে মাদকের বড় চালান বিজিবি ধরার কারণে তারা সংবদ্ধ হয়ে বিজিবির উপর এ হামলা চালিয়েছে।
আহত তিন বিজিবি হাবিলদার সোবহান ও সিপাহী মাইদুল ইসলাম এবং শাহিন মিয়া ফুলবাড়ী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে
এ ঘটনায় এক শিশুসহ ৪ জনকে আটক করেছে বিজিবি। পরে একজনকে আটক করে শিশুসহ বাঁকি তিনজনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসা বাদ করে ছেড়ে দেওয়া হয়। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিসহ মোট ১১ জনের নাম উল্লেখ্য করে। এবং আরও অজ্ঞাত ৩০/৩৫ জনের বিরুদ্ধে সরকারী কাজে বাধা দেওয়ার অপরাধে বিজিবি মঙ্গলবার সন্ধায় বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিকে ফুলবাড়ী থানায় সোপর্দ করে।
মামলা এজাহার কৃত আসামীরা হলেন, নাগেশ্বরী উপজেলার পশ্চিম রামখানা গ্রামের মৃত আজিজার রহমানের ছেলে আইয়ুব আলী(৫৫), ফুলবাড়ী উপজেলার অনন্তপুর বেড়াকুটি গ্রামের রমজান আলীর ছেলে আমিনুর রহমান (৫৫), একই গ্রামের আনছার আলীর ছেলে আমিনুল ইসলাম (৪০), নজির উদ্দিনের ছেলে নজিম উদ্দিন (৩৫), আব্দুল রশিদ (৩২), নাজমুল হক (৩০), মজিবর রহমানের ছেলে মোফাজ্জল হোসেন ওপে মোভা (৩২),ইনছার ব্যাপারীর ছেলে বাদল মিয়া (৩৫),নাগেশ্বরী উপজেলার পশ্চিম রামখানা গ্রামের নাড্ডু মিয়ার ছেলে (৫২), মৃত মজাহার আলীর ছেলে এমদাদুল হক ওপে এমদা (৪৮), আইয়ুব আলীর স্ত্রী মোছাঃ রশিদা বেগম।
গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিকে আজ বুধবার সকালে কুড়িগ্রাম জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। বর্তমানে ওই সীমান্তে অতিরিক্ত বিজিবি মোতায়ন করা হয়েছে এবং ফুলবাড়ী থানা পুলিশ আসামীদের গ্রেফতারে জন্য অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। এ ঘটনায় লালমনিরহাট ১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়ন ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার মেজর জিয়া মোঃ মাসুম বিন কুদ্দুস ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
এ ব্যাপারে ফুলবাড়ী থানার ওসি খন্দকার ফুয়াদ রুহানী জানান, এ ঘটনায় বিজিবি বাদী হয়ে মঙ্গলবার সন্ধায় ১১ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ৩০/৩৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। মামলা নং ১৫ এবং আসামীদের গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত আছে।
এ বিষয়ে কাশিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলজার আলী জানান ভুল বুঝাবুঝির কারণে সংর্ঘষ হয় । শুনেছি জরিতদের বিরুদ্ধে বিজিবি বাদী জয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

Aviation News