বাগডোগরা বিমানবন্দরে রাতেও চলাচল করবে বিমান

এই লেখাটি 94 বার পঠিত

২৯ মার্চ থেকে বাগডোগরা বিমানবন্দরে রাতেও শুরু হচ্ছে বিমান চলাচল। পরীক্ষামূলক ভাবে বিমান চলাচলের পর্ব শেষ। মিলেছে চূড়ান্ত অনুমতি। ছয় মাস আগে বন্যায় কার্যত বিচ্ছিন্ন উত্তরবঙ্গের সঙ্গে যোগাযোগ বলতে ছিল বিমান। তবে বাধা হয় রাতে বিমান চলাচলের প্রযুক্তিগত অসুবিধা। এবার সেই সমস্যা কাটছে। ইটিভি নিউজ বাংলার বিশেষ প্রতিবেদন।

৬ মাস আগের ঘটনা। বিধ্বংসী বন্যায় ডুবে উত্তরবঙ্গ। স্তব্ধ বাস- ট্রেন। আকাশে উত্তরবঙ্গের লাইফলাইন কিন্তু সচলই ছিল। ফগ লেজার ও ইরোশন অফ ওয়াটার সিস্টেমে বাগডোগরায় বিমান ওঠানামা থামেনি।

২০১৬ ‘র ১২ অগস্ট থেকে ১৩ সেপ্টেম্বর। এই ১ মাস ১ দিনে উত্তরবঙ্গের সঙ্গে বাকি দুনিয়ার যোগাযোগ বলতে একমাত্র বিমান। ভরসা বলতে বাগডোগরা। তবে বিকেল ৪ টে পর্যন্তই। প্রযুক্তিগত কারণে রাতে বিমান চলাচলের সুযোগ ছিল না বাগডোগরায়। অবস্থা বদলেছে। ২৯ মার্চ থেকে রাতেও শুরু হচ্ছে বিমান চলাচল।

বহুদিনের দাবি- আন্দোলন। তবে ১২ বছরের সমস্যা মিটে যায় মাত্র কয়েক মাসের তৎপরতাতেই ।

ল্যান্ডিং ও আপ্রোচ লাইট বসাতে প্রয়োজনীয় জমি পায়নি বিমানবন্দর কেন্দ্রের অনুরোধে জমির দায়িত্ব নেয় রাজ্য

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ১৩ একর জমি বিনামূল্যে দেওয়া হয় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে রাতে বিমান ওঠানামার শুরু হলে বন্যা বা প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মোকাবিলায় তৈরি হবে নতুন সম্ভাবনা। গত বছর বন্যার সময়ে ৩২ দিনে ১৪০৮ বার বিমান যাতায়াত করেছে অধিকাংশই উড়ানই পুরো ভরতি ছিল চাহিদা আকাশছোঁয়া হওয়ার টিকিটের দাম কয়েকগুণ পর্যন্ত বেড়ে যায় রাতে বিমান নামলে পরিস্থিতি সামলানো সহজ হত রাতের বিমানের হাত ধরে পর্যটন ও পণ্য-পরিবহণের ছবিটাই বদলে যাওয়ার আশায় উত্তরবঙ্গবাসী।

উত্তর পূর্বের গেটওয়ের মাধ্যমে যাতায়াত করেন লক্ষ লক্ষ পর্যটক, ব্যবসায়ী ও ভিনরাজ্যের মানুষ। বিদেশি পর্যটকের সংখ্যাও নেহাৎ কম নয়। এদের সবার কাছেই নতুন উপহার নিয়ে হাজির হচ্ছে বাগডোগরা বিমানবন্দর।

Aviation News