অস্ট্রেলিয়ান যুবতীর আজব দাবি

এই লেখাটি 134 বার পঠিত

এতদিন বাদে নারীর ঋতুস্রাব সিনেমার বিষয় হিসেবে উঠে এসেছে। কথা হয়েছে স্যানিটারি ন্যাপকিন নিয়ে। তাতে লাভ কতটা হয়েছে তা তর্ক সাপেক্ষ বিষয়। কিন্তু এরই মধ্যে চাঞ্চল্যকর দাবি করে বসলেন অস্ট্রেলিয়ার যুবতী ন্যাডিন লি। ৩০ বছরের যুবতীর দাবি, ঋতুস্রাব পান করলে নাকি শরীর সুস্থ থাকে, কর্মক্ষমতা বাড়ে।

প্রথমজীবনে বিজ্ঞাপন জগতে কাজ করতেন ন্যাডিন। ক্রমে তা একঘেয়ে হতে থাকলে মানসিক চাপ থেকে মুক্তি পেতে যোগ ও অধ্যাত্ম চেতনার পথ অনুসরণ করেন তিনি। এই পথেই একদিন ব্লাড ম্যাজিকের প্রতি আকর্ষণ বোধ করেন। তা নিয়েই গবেষণা করতে থাকেন। এর জন্যই বহুদিন ধরে বালি-তে রয়েছেন। সেখানে মানুষকে সুস্থতার মন্ত্র দিয়ে বেড়ান আর ঋতুস্রাবের উপকারিতা নিয়ে গবেষণা শুরু করেন।

সম্প্রতি ন্যাডিন দাবি করেন, নিজের ঋতুস্রাব নিজে পান করলে মেয়ের শরীর সুস্থ থাকে। এতে প্রাকৃতিক উপায়ে কর্মক্ষমতা বাড়ানো যায়। এর নেপথ্যে অস্ট্রেলিয়ার যুবতীর যুক্তি, ঋতুস্রাবের মাধ্যমে যে ভিটামিন ও মিনারেল শরীর থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে। এর প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তা পুনরায় শরীরে প্রবেশ করে।

মাতৃগর্ভকে তিনি ‘হোলি গ্রেল’-এর সঙ্গে তুলনা করেছেন আর ঋতুস্রাবের রক্তকে তুলনা করেছেন ক্রুশবিদ্ধ যিশুর পবিত্র রক্তের সঙ্গে। নিয়মিত যার সেবন করলে নাকি শরীরের শক্তি বাড়ে। বাড়ে জ্ঞান। যে জ্ঞান মানুষকে অধ্যাত্ম চেতনার আরও কাছাকাছি নিয়ে যায়। এ যেন প্রকৃতির সঙ্গে মিশে গিয়ে মানুষ হিসেবে নিজেকে আরও উন্নত ও আধ্যাত্মিক করে তোলা।

ন্যাডিনের মতে রক্তই নাকি জীবন। নিজের এই মতধারাই আরও জনমানসে ছড়িয়ে দিতে চান ন্যাডিন। এই জন্যই আগামী মাসে এ বিষয় নিয়ে সিডনি-তে বক্তব্য পেশ করবেন তিনি। নিজের দেশের মানুষকেও জানাবেন প্রকৃতির এই অবদানের কথা।

Aviation News