কার্গো ভোগান্তিতে আছে আমিরাতে প্রবাসীরা

এই লেখাটি 49 বার পঠিত

সংযুক্ত আরব আমিরাতে অবস্থানরত প্রবাসীরা নানা জঠিলতায় সময় মতো দেশে যেতে না পারলেও তাদের আত্মীয়-পরিজনদের জন্য এখান থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কার্গোর মাধ্যমে পাঠাতে চেষ্টা করেন বা পাঠিয়ে থাকেন। কিন্তু দেশে সুনির্দিষ্ট কোনো কার্গো নীতিমালা না থাকাতে নানা জটিলতায় তাদের পাঠানো মালামালগুলো বিমানবন্দর বা নৌবন্দরে মাসের পর মাস পড়ে থাকে নষ্ট হয়।

স্থানীয় কার্গো ব্যবসার সঙ্গে জড়িতরা ঠিক মতো সেবা ও এর নির্দিষ্ট কোনো সুরাহা বা উত্তর দিতে পারে না তাদের প্রেরিত মালগুলো কখনো প্রবাসীদের আত্মীয়-স্বজনদের কাছে ঠিকমত পৌছবে কিনা।
আমিরাতে অবস্থানরত আট লক্ষাধিক প্রবাসীদের অনেকেই দেশে থাকা পরিবার পরিজন আত্মীয়-স্বজনদের কাছে তাদের চাহিদামতো জিনিসপত্র আমিরাতের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে কার্গোর মাধ্যমে পাঠায়। আমিরাতের বিভিন্ন প্রদেশে ছড়িয়ে ছিটিযে থাকা কার্গো ব্যবসায়ীদের অন্যতম প্রধান বাহন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। আবার কার্গো ব্যবসায়ীরা কোনো কোনো সময় সী কার্গোর মাধ্যমেও কার্গোগুলো পাঠায়। কিন্তু নানা জটিলতায় প্রবাসীদের পাঠানো মালামালগুলো দেশে ঠিকমতো না পেয়ে তারা তাদের অভিযোগের কথা তুলে ধরেন।

মোহা্ম্মদ রফিকুল আলম, মোহাম্মদ ফজলুল করিম চৌধুরী, মোহাম্মদ কামাল পাশা, আবদুল আজিজ, আবদুল আলিম সাইফুল, আবুল বশরসহ অনেক প্রবাসীসহ অনেক প্রবাসী কার্গোতে মালামাল পাঠিয়ে তাদের নানা ভোগান্তির কথা কালের কণ্ঠকে জানান। তারা স্থানীয় কার্গো ব্যবসায়ীদেরও দায়ী করেন এবং তাদের নানা অসহযোগীতার কথাও উল্লেখ করেন।

আমাদের প্রতিবেশী আর পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকা, ফিলিপাইনসহ অন্যান্য দেশে কার্গো মালামাল পাঠানো যেমন সস্তা তেমনি সহজও। এ সমস্ত দেশের প্রবাসীরা ৩/৪ দিনে এয়ার কার্গো ও ৭/৮ দিনে সী কার্গোতে তাদের প্রেরিত মালামাল পেয়ে যান।

অপরদিকে আমিরাতে বাংলাদেশে কার্গোতে মালামাল পাঠাতে যেমন মূল্য বেশি তেমনি সময়ও লাগে ১০ থেকে ১৫ দিন। সী কার্গোতে লাগে ১ থেকে ২ মাস। আবার অনেকে কার্গো পাঠানোর পর তাদের মালামালের কোনো হদিসও থাকে না। প্রবাসীরা মালামাল পাঠানোর পর অনেক সময় জানেন না মালামালগুলো আদৌ তাদের আত্মীয়-পরিজনরা পাবেন কিনা।
বিমানের আবুধাবীর আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক ইকবাল আহমেদ চৌধুরী কার্গো নিয়ে তার বক্তব্য পরিষ্কার করেন। তিনি জানান, ঢাকা ও চট্টগ্রামে প্রতিদিন ফ্লাইট থাকলে স্থানীয় কার্গো ব্যবসায়ীরা এ দুই বিমানবন্দর দিয়ে কার্গো পাঠান না। নানা কারণে কার্গো ব্যবসায়ীরা সপ্তাহে একদিন সিলেটগামী ফ্লাইটে তাদের কার্গো পাঠাচ্ছেন বলে জানান।

আমিরাতের কার্গো অ্যাসোশিয়েশনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করেও তাদের কাছ থেকে এ বিষয়ে তাদের তেমন কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রবাসীদের দাবি, প্রবাস বান্ধব সরকার নির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন করে তাদের প্রেরিত মালগুলো যথাসময়ের পাবার ব্যবস্থা করবেন।

Aviation News