সংবাদ সম্মেলনে বিমান এমডি‘র অপসারণ দাবি

এই লেখাটি 304 বার পঠিত

বিশেষ প্রতিনিধি : বাংলাদেশ বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের অপসারণ ও আর্থিক দুর্ণীতির কারণে দুর্ণীতি দমন কমিশনকে (দুদক) তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ হজযাত্রী ও হাজী কল্যাণ পরিষদ।  রোববার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুলাহ আল নাসের এ দাবি জানান। তিনি বলেন, গত বছর হজে বিমান ভাড়া এক লাখ ২৪ হাজার ৭২৩ টাকা থাকলেও এ বছর ১৬৩৩ মার্কিন ডলার বা প্রায় এক লাখ ৩৫ হাজার টাকা করার প্রস্তাব করেছে বিমান। যা সম্পুর্ণ অন্যায় সিদ্ধান্ত। এতে হাজীদের কাছ থেকে ৩৪৫ কোটি ৮৯ লাখ টাকা বেশি নেয়ার পায়তারা করা হচ্ছে।

যে টাকা বিদেশে পাচার করা হতে পারে আশংকা করে এজন্য তার অপসারণ দাবি করছি এবং দুদককে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আহবান জানাচ্ছি। নাসের আরো বলেন, বর্তমানে ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক এয়ারলাইন্সে ভাড়া নেয়া হয় ৩৮ থেকে ৪২ হাজার টাকা। সৌদি এয়ার লাইন্স নেয় ৪৮ হাজার টাকা। এ বছরের ওমরায় বাংলাদেশ বিমান জেদ্দা যাওয়া-আসা ভাড়া নিচ্ছে ৫২ হাজার টাকা। অথচ সেই ভাড়া হজের সময় এক লাখ ৩৫ হাজার টাকা করা কোন মতেই যুক্তি সম্মত হতে পারে না। তিনি বলেন, হজের সময় বিমান জেদ্দা গিয়ে খালি ফিরে আসে এবং হজ শেষে হাজীদের নিয়ে আসার পর খালি ফিরে যায় এ যুক্তিতে ভাড়া দ্বিগুন করে ৪৮ হাজার থেকে ৯৬ হাজার করা যেতে পারে, কিন্ত তা কোনভাবেই তিনগুন হতে পারেনা। সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বাতেন, সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আজাদ হোসেন ও কামরুজ্জামান প্রমুখ।

এ প্রসঙ্গে বিমানের মুখপাত্র ও জেনারেল ম্যানেজার (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ বলেন, হজে বিমান ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টিতে বিমান এমডির একার কোন সংশ্লিতা নেই। কাজেই তরি বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ দেয়া ঠিক হয়নি। তনি বলেন, নানা কারণে সরকার হজ যাত্রীদের বিমান ভাড়া বাড়িয়েছে। এর মধ্যে উলে­খ্যযোগ্য হল দেশীয় ও আন্তজাতিক বাজারে জেট ফুয়েলের দাম বৃদ্ধি। গত বছরের তুলনায় এক বছরে ৪ দফা জেট ফুয়েলের দাম বাড়ানো হয়েছে।

এছাড়া হজের সময় সৌদি আরব সরকার হজ ফ্লাইট সংক্রান্ত বিভিন্ন সার্ভিস চার্জের ওপর ৫শতাংশ হারে সার্ভিস চার্জ আরোপ করেছে। আগে এসব সার্ভিস চার্জ ছিল না। তার মতে গত বছর বিমান ভাড়া ছিল ১৪৭৫ মার্কিন ডলার। এবার তা বাড়িয়ে করা হয়েছে ১৬৩৫ ডলার। যদি সবকিছু ধরে ভাড়া বাড়ানো হত তাহলে এই ভাড়া ১৮শ ডলার ছাড়িয়ে যেতো।

Aviation News