এয়ার ইন্ডিয়া নিয়ে ভারতীয় সংসদীয় কমিটিতে ঝড়

এই লেখাটি 112 বার পঠিত

ভারতের শাসক দলের সঙ্গে বিরোধীদের বিতণ্ডা। তার জেরে আপৎকালীন পরিস্থিতিতে জরুরি অবতরণ ঘটল এয়ার ইন্ডিয়া সংক্রান্ত বৈঠকের!

বৈঠকের আলোচ্যসূচিতে অবশ্য এয়ার ইন্ডিয়া ছিল না। পরিবহণ, পর্যটন ও সংস্কৃতি সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে সোমবার আলোচনা হচ্ছিল পর্যটনে বৌদ্ধ সার্কিটের বিকাশ নিয়ে। সেখানে হঠাৎই এসে পৌঁছে বিজেপি-র সাংসদেরা এয়ার ইন্ডিয়া বেসরকারিকরণের বিরোধিতায় কমিটির তৈরি করা নোট প্রত্যাহারের দাবি তোলেন বলে অভিযোগ। বিতণ্ডার জেরে শেষ পর্যন্ত বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে চলে আসেন তৃণমূলের অর্পিতা ঘোষ, কংগ্রেসের কুমারী শৈলজা, কে সি বেণুগোপাল, বাংলার ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়েরা। তাঁদের অভিযোগ, যাবতীয় সংসদীয় রীতিনীতি তছনছ করে গণতান্ত্রিক পরিবেশ ধ্বংস করতে চাইছে দেশের শাসক পক্ষ।

এয়ার ইন্ডিয়ায় ৪৯% পর্যন্ত শেয়ার প্রত্যক্ষ বিদেশি হাতে দেওয়ায় সায় দিয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। ওই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে নোট তৈরি করেছে স্থায়ী কমিটি। সদস্যদের কাছে বিলি করা হয়েছে সেই নোট। কিন্তু কমিটির চেয়ারম্যান ডেরেক ও’ব্রায়েন এ দিন কলকাতায় বিশ্ব বাণিজ্য সম্মেলনে ব্যস্ত থাকায় বৈঠকে থাকতে পারবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন। তাই এয়ার ইন্ডিয়া প্রসঙ্গ বৈঠকের আলোচ্যে এ দিন রাখা হয়নি। ডেরেকের অনুপস্থিতিতে বর্ষীয়ান সাংসদ হিসাবে শৈলজা বৈঠকে সভাপতিত্ব করছিলেন। সূত্রের খবর, পরে এক ঝাঁক সাংসদকে নিয়ে বৈঠকে আসেন লোকসভায় বিজেপি-র সচেতক রাকেশ সিংহ। তাঁর দাবি মেনে তাঁকেই বৈঠকের সভাপতিত্বের দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়া হয়। এর পরে তিনি দাবি করেন, এয়ার ইন্ডিয়াকে বাঁচানোর জন্য ঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। ওই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে স্থায়ী কমিটির নোট এ দিনই প্রত্যাহার করে নিতে হবে!

এমন দাবিতে বেঁকে বসেন শৈলজারা। তাঁরা যুক্তি দেন, চেয়ারম্যান বৈঠকে নেই। এয়ার ইন্ডিয়া বৈঠকে আলোচ্যও নয়। কিন্তু রাকেশ ও তাঁর সঙ্গীরাও ছিলেন অনড়। বাক্‌বিতণ্ডা চলার পরে বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে যান শৈলজা, বেনুগোপালেরা। মোট ৩১ জনের কমিটিতে বিজেপি-র সাংসদ আছেন ১৭ জন (তাঁদের মধ্যে এক জন শত্রুঘ্ন সিন্হা)। অ-বিজেপি সাংসদেরা ঠিক করেছেন, নোট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে নথিভুক্ত হয়ে গেলে ২২ জানুয়ারি পরবর্তী বৈঠকে তাঁরা হেস্তনেস্ত চাইবেন। ইউপিএ জমানায় বিমানমন্ত্রী হলেও প্রফুল্ল পটেল অবশ্য বেসরকারিকরণের সিদ্ধান্তের পক্ষে।

কমিটির চেয়ারম্যান ডেরেকের অভিযোগ, ‘‘সংসদীয় প্রথা চুরমার করে দিচ্ছে বিজেপি। আমরাও এর শেষ দেখে ছাড়ব!’’ বিজেপি সাংসদেরা দলীয় মহলে পাল্টা বলছেন, কমিটির বৈঠকে আনুষ্ঠানিক ভাবে গৃহীত হওয়ার আগে খসড়া রিপোর্ট কী ভাবে বাইরে বেরিয়ে গেল, সেই জবাবদিহি তাঁরা চাইবেন!

Aviation News