পরিবর্তন আসছে শাহজালাল বিমানবন্দরের গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিংয়ে

ground handlingহযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে লাগেজ নিয়ে যাত্রীদের ভোগান্তি লাঘবে বাংলাদেশ বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয় নানামুখী উদ্যোগ নিয়েছে। এর অংশ হিসেবে গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনা হচ্ছে। এই খাতে প্রয়োজনীয় সংস্কারের জন্য সেবাদানকারী বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়ে একটি কমিটি করা হয়েছে। তা ছাড়া লাগেজ পার্টির তত্পরতা কমাতে নেওয়া হয়েছে বেশ কিছু উদ্যোগ। এরই মধ্যে লাগেজ কাটা চক্রের সদস্যদের একটি তালিকা করা হয়েছে। ওই তালিকায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ও সিভিল এভিয়েশনের একাধিক কর্মচারীর নাম রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরসহ দেশের সব বিমানবন্দরে গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং রেগুলেশন প্রণয়নের লক্ষ্যে একটি কমিটি করা হয়েছে। কমিটি এরই মধ্যে কাজও শুরু করেছে। আইকাও রুলস অনুযায়ী উড়োজাহাজ অবতরণের প্রথম ১২ মিনিটের মধ্যে প্রথম লাগেজ ডেলিভারি দিতে হবে এবং ৩০ মিনিটের মধ্যে সব ডেলিভারি শেষ করতে হয়। কিন্তু শাহজালালে সেই রুল অনুযায়ী লাগেজসেবা পাওয়া কল্পনাতীত। এখানে লাগেজের জন্য যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়। অনেক ক্ষেত্রে তা পাওয়া যায় কাটা অবস্থায়। আর লাগেজের মালামাল হয়ে যায় লাপাত্তা।

গোয়েন্দা তথ্য অনুযায়ী, শাহজালাল বিমানবন্দরে লাগেজ কাটা পার্টির অন্তত অর্ধশত সদস্য সক্রিয়। ওই সদস্যদের মধ্যে বিমান ও সিভিল এভিয়েশনের কিছু কর্মচারী রয়েছে। মাস তিনেক আগে শাহজালালে সৌদি এয়ারলাইনসের একটি বিমান থেকে লাগেজ কেটে মালামাল চুরির সময় বিমানের কর্মচারী জিয়াউর রহমান ও নজরুল ইসলামসহ চারজনকে আটক করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে, সিভিল এভিয়েশনের নিরাপত্তা কর্মকর্তা নাছিমা শাহীন, নিরাপত্তা কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন, ডিএসও এবং ঘ পালার নিরাপত্তা কর্মকর্তা আনোয়ারা খান, স্টোরকিপার নূপুর রানী বিশ্বাস, ক্লিনার রোকেয়া, নিরাপত্তা অপারেটর প্রতুল চন্দ্র দাস, সালাউদ্দিন, মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ লাগেজ কাটা সিন্ডিকেটকে দীর্ঘদিন ধরে সহায়তা করে আসছে।

এপিবিএনের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘উল্লিখিতরা দীর্ঘদিন ধরেই বিমানবন্দরে নানা অপকর্ম করে আসছে বলে আমরা নিশ্চিত হয়েছি। তাদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে অভিযানও শুরু হয়েছে। গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনা হলে প্রতারকদের সহজেই প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে। ’

বিমান পরিচালনা পর্ষদের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনার লক্ষ্যে ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইএটিএ) থেকে পরামর্শক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। আমরা একটি গাইডলাইন তৈরি করেছি। গ্রাউন্ড সার্ভিস সেবার মানোন্নয়নে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছি। এখন প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে উন্নত যাত্রীসেবার দিকে। বিদেশি এয়ারলাইনসগুলোর জন্য আধুনিক সুবিধা নিশ্চিত করা হচ্ছে। এরই মধ্যে বেশ কয়েক প্রকারের হালকা ও ভারী নতুন ইকুইপমেন্ট কেনা হয়েছে। ’

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন গতকাল শুক্রবার বলেন, ‘যাত্রীদের লাগেজ ডেলিভারি নিয়ে প্রতিনিয়ত সমালোচনা আর অভিযোগ আসছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং খাতকে আইনি কাঠামোতে আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সেটার বাস্তবায়ন দ্রুতই করা হবে। যাত্রীদের লাগেজ যাতে কেউ কাটতে না পারে সে জন্য নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। ’

সূত্রঃ কালের কণ্ঠ

Aviation News

সম্পাদক: তারেক এম হাসান
যোগাযোগ: জোবায়ের অভি, ঢাকা, ফোন +৮৮ ০১৬৮৪৯৬৭৫০৪
ই-মেইল: jobayerovi@gmail.com
যুক্তরাস্ট্র অফিস
ইউএসএ সম্পাদক: মো. শহীদুল ইসলাম
৭১-২০, ৩৫ অ্যাভিনিউ, জ্যাকসন হাইটস, নিউইয়র্ক ১১৩৭২
মোবাইল: +১ (২১২) ২০৩-৯০১৩, +১ (২১২) ৪৭০-২৩০৩
ইমেইল: dutimoy@gmail.com
এডিটর ইন চিফ : মুজিবুর আর মাসুদ ইমেইল: muzibny@gmail.com
©সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত এভিয়েশন নিউজবিডি.কম ২০১৪-২০১৬