মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বরাবর বিমানের ক্যাজুয়াল শ্রমিকদের খোলা চিঠি

open letterএভিয়েশন নিউজঃ রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমানে দীর্ঘ ০৫-৩০ বছর যাবৎ দৈনিক ৪৯০ টাকা ভিত্তিতে স্থায়ী কাজে ক্যাজুয়াল শ্রমিক হিসেবে কর্মরত আছেন ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিক। বিমানে সবচেয়ে কঠোর পরিশ্রম ও কষ্টদায়ক কাজগুলো রোদ-বৃষ্টি-ঝড়ে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে নিরলস ভাবে বিমানের উন্নতিতে এখনও কাজ করে যাচ্ছেন তারা। বিমানের সার্বিক উন্নয়নে তারাও সম অংশীদার।চাকুরী স্থায়ী হওয়ার আশায় এখনও মা-বাবা, ভাই-বোন ও স্ত্রী-সন্তান নিয়ে অতিকষ্টে মানবেতর জীবন যাপন করছেন তারা। তাদের ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিকের একটাই চাওয়া চাকুরী স্থায়ীকরণ। বিমান কর্তৃপক্ষ ও মাননীয় বিমান মন্ত্রী সহ বিভন্ন শ্রমিক সংগঠনের বার বার নানান প্রতিশ্রুতির বানীতে আশাম্বিত হয়েও কোনো আলোর মুখ দেখেননি বিমানে কর্মরত ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিক। তাই তারা বাধ্য হয়ে এভিয়েশন নিউজের মাধ্যমে তাদের মানবিক আবেদনটি খোলা চিঠি আকারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বরাবর প্রকাশ করতে চান। খোলা চিঠিটি হুবহু তুলে ধরা হলঃ

 

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
বাংলাদেশ।

বিষয়ঃ বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিঃ এর বেতন বিভাগ (পে-গ্রুপ) ১ ও ২ ক্যাজুয়াল শ্রমিকদের চাকুরী স্থায়ীকরণের জন্য মানবিক আবেদন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সু-যোগ্য কন্যা, বিশ্বপরিচিত আপসহীন নেত্রী, বাংলার অহংকার, ১৬ কোটি মানুষের প্রিয় নেত্রী বাংলাদেশের উন্নয়নে অবিস্মরনীয় কৃতিত্বের অধিকারি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে পত্রের শুরুতে জানাই সালাম ও আন্তরিক শুভেচ্ছা। আজ দুঃখ ও ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আপনার সমীপে কিছু বলতে চাই। আমরা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিঃ এর দৈনিক ভিত্তিক ক্যাজুয়াল বেতন বিভাগ (পে-গ্রুপ) ১ ও ২ শ্রমিকবৃন্দ। আমরা নিরুপায় হয়ে আজ আপনার নিকট দারস্থ হয়েছি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিষ্ঠিত স্বপ্নের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিঃ অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে আজ সুনাম সাথে নিয়ে পথ অতিক্রম করছে। কিন্তু দীর্ঘ ০৫-৩০ বছর যাবৎ আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিঃ এ স্থায়ী কাজে ক্যাজুয়াল শ্রমিক হিসেবে কর্মরত আছি। বিমান কর্তৃপক্ষ ও মাননীয় বিমান মন্ত্রী সহ বিভন্ন শ্রমিক সংগঠনের বার বার নানান প্রতিশ্রুতির বানীতে আশাম্বিত হয়ে, সে অপেক্ষায় প্রহর গুনে সার্টিফিকেটের বয়সসীমার মেয়াদ শেষ। চাকুরী পরিবর্তন করে অন্য পেশায় যাওয়ার রাস্তা ও খোলা নাই। নবীন ক্যাজুয়ালদের এমন সর্বনাশ করার সব আয়োজন করে রেখেছে বিমান। উল্লেখ্য যে, বিমানে সবচেয়ে কঠোর পরিশ্রম ও কষ্টদায়ক কাজগুলো রোদ-বৃষ্টি-ঝড়ে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে নিরলস ভাবে বিমানের উন্নতিতে এখনও কাজ করে যাচ্ছি। বিশ্বাস করি বিমানের সার্বিক উন্নয়নে আমরাও সম অংশীদার। কত ক্যাজুয়াল শ্রমিক ভাই স্থায়ী হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে মৃত্যুবরন করেছে। প্রতিশ্রুতি মোতাবেক চাকুরী স্থায়ী হওয়ার আশায় এখনও মা-বাবা, ভাই-বোন ও স্ত্রী-সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার জ্ঞাতার্থেঃ-

• একই মন্ত্রনালয়ের অধীনে (বেসামরিক ও পর্যটন মন্ত্রণালয়) ২০১৫ সালে সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের প্রায় ১৩০০ জন ক্যাজুয়াল শ্রমিককে স্থায়ীকরণ করা হয়েছে।

• মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি জানেন বর্তমান শ্রমবান্ধব সরকারের শ্রম সংশোধনী আইন ২০১৩ পাশ হয়েছে। যে আইনে ৪নং ধারা ১১নং উপধারায় বলা হয়েছে কোন প্রতিষ্ঠানে স্থায়ী কাজের জন্য অস্থায়ী কর্মচারী/শ্রমিকে দৈনিক ভিত্তিক কোন শ্রমিক নিয়োগ দেওয়া যাবে না। কিন্তু আমরা কোন আইনের কোন ধারায় যুগের পর যুগ ক্যাজুয়াল আছি তা আমাদের জানা নাই।

• ২০০১ সালে বিমান এডমিন অর্ডার অনুযায়ী (সূত্রঃ- “নিয়োগ/১৫/২০০১/৬৫৫”) ৫-১০ বছর যারা সততার সহিত চাকুরী করেছেন তাদের স্থায়ী করার কথা থাকলেও তা বাস্তবায়ন আজও হয়নি।

• বিমান কর্তৃপক্ষ সব সময় অর্গানোগ্রাম (সেট-আপ) এর দোহাই দিয়ে আমাদের কে যুগের পর যুগ ঝুঁলিয়ে রেখেছেন অথচ আমরা যে কাজ করি তা বিমানের স্থায়ী কাজ যা এক ঘন্টার জন্য বন্ধ থাকে না। বেতন বিভাগ (পে-গ্রুপ) ১ ও ২ ব্যতীত প্রায় অন্যান্য বেতন বিভাগ (পে-গ্রুপ) ৩(১) এবং ৩(২) ২-৩ বছর চাকুরীর বয়সে তারা স্থায়ী হচ্ছে।

• ২০০৯ সালের পর থেকে দৈনিক ৩০০/- টাকা মজুরীতে কাজ করে দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ আমাদের বেতন বৃদ্ধি পায়নি। মাঝখানে ২০১৩ সালে ৫০/- টাকা বৃদ্ধি করে ৩৫০/- টাকা হয়েছিল। আপনার কৃপায় সারা বাংলাদেশে পে-স্কেল ২০১৫ প্রদান করা হয়। কিন্তু বিমান কর্তৃপক্ষ আমাদের গত সেপ্টেম্বর ২০১৬ সালে বেতন বৃদ্ধি করে ৪৯০/- টাকা দৈনিক মজুরি করা হয়। মাত্র ২২-২৩ দিনের ৪৯০/- টাকা করে হাজিরা যা কোন ভাবে বর্তমান বাজার ব্যবস্থার সাথে সামঞ্জস্য নয়। এখানে আরো উল্লেখ্য ২০১০ সালের পে-স্কলও বিমানের ক্যাজুয়াল শ্রমিকে দেওয়া হয়নি।

• রাষ্ট্রের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তিদের যেমন মাননীয় রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহ বিশ্বের অন্যান্য ভিভিআইপি গণের ভিভিআইপি ফ্লাইট গুলোতে বিমান ক্যাজুয়াল শ্রমিক দিয়ে সম্পন্ন করানো হয়। যা আমরা ক্যাজুয়াল শ্রমিক সততা ও নিষ্ঠার সহিত পালন করি।

• ২০০৭ সালের শেষে দিকে নিয়োগ পাওয়া প্রায় ২০০ জন (ড্রাইভার, টায়ার রিপেয়ার, সিকিউরিটি ও ট্রাফিক) থেকে বেতন বিভাগ (পে-গ্রুপ) ৩(১) ও ৩(২) দেখিয়ে ২০০৯ সালে অর্গানোগ্রাম (সেট-আপ) না থাকা স্বর্তেও ক্যাজুয়াল থেকে জি-নাম্বার প্রদান করে স্থায়ী করা হয়। কিন্তু অদ্যবধি বেতন বিভাগ (পে-গ্রুপ) ১ ও ২ ক্যাজুয়ালদের স্থায়ী করা হয়নি অথছ তারা দীর্ঘ ০৫-৩০ বছর যাবৎ বিমানে কাজ করছে।

• বিমানে এখন নিয়োগের নামে চলছে অনিয়ম। স্থায়ী কাজে প্রায় ২,০০০ জন ক্যাজুয়াল শ্রমিক থাকার পরে তাদের স্থায়ী না করে বার বার ক্যাজুয়াল শ্রমিক নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জায়গা গুলোতে ক্যাজুয়াল শ্রমিকেরা কাজ করে বিমানকে করেছে লাভ জনক। কিন্তু বিমান কর্তৃপক্ষ কোন স্বার্থে? কার স্বার্থে? অর্গানোগ্রামে (সেট-আপ) থেকে বেতন বিভাগ (পে-গ্রুপ) ১ ও ২ কে বাদ দেওয়ার জন্য পায়তারা হচ্ছে। আমাদের ক্যাজুয়াল শ্রমিকের ঘামে ভেজা শ্রমের মূল্য কে দিবে?

• বিমান স্থায়ী কাজে ৯০ দিন ভিত্তিক ক্যাজুয়াল নিয়োগের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগেই, শ্রমিককে বাধ্যতামূলক অনুপস্থিত দেখিয়ে শ্রমিকের আইনগত দিকটাকে এক রকম বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে রাখছে। এর বিরুদ্ধে আমরা কখনই কথা বলিনি। বর্তমান স্থায়ী কাজে জন্য ১০ দিন ভিত্তিক ক্যাজুয়াল শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে আইনের প্রতি চরম ধৃষ্টতা প্রদর্শন করছে বিমান। এ যেন আধুনিক যুগের দাস প্রথা।

• মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি শুনলে আরো অবাক হবেন প্রায় সব প্রতিষ্ঠানে উৎসব বোনাস বছরে দু’বার দেওয়া হয়। কিন্তু বিমান কর্তৃপক্ষ উৎসব বোনাস বৈষম্য করে নামমাত্র ২,৮০০/- টাকা দেয়। সত্যিকার অর্থে ক্যাজুয়াল শ্রমিক সে উৎসবের আনন্দ কতটুকু পায় আপনার কাছে প্রশ্ন রইল?

• যেখানে একজন গার্মেন্টস শ্রমিক ছুটি, ভাতা, ইউনিফরম, ১০০% ঈদ বোনাস, প্রভিডেন্ট ফান্ড, বাসস্থান, চিকিৎসা, গ্রাচুটি সুবিধা পায়। অথচ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমানের স্থায়ী কাজে নিয়োজিত কর্মচারী/শ্রমিক হয়েও আমরা ২,০০০ জন ক্যাজুয়াল শ্রমিক তা থেকে বঞ্চিত।

• কোন ক্যাজুয়াল শ্রমিক যদি কর্মক্ষেত্রে মারা যায়, তাহলে তার নিভরশীলরা কোন মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ পায় না। বিমানে কর্মরত অবস্থায় যদি কোন ক্যাজুয়াল শ্রমিক পঙ্গুত্ববরণ করেন বিমান তার জন্য কোন প্রকার ক্ষতি পূরণ বা চিকিৎসা ভাতা প্রদান করে না এবং চাকুরীতেও রাখে না।

• বিমান শ্রমিক লীগ (সিবিএ) পর পর ২ বার নির্বাচিত সিবিএ। বিমান শ্রমিক লীগ (সিবিএ) এর চার্টার্ড অফ ডিমান্ড ক্যাজুয়ালের চাকুরী স্থায়ী করনের দাবি ১নং এ থাকার পরেও ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা বা স্থায়ীকরণ আজও হয়নি। বাংলাদেশে বঞ্চিত কোন শ্রমিকের নাম যদি খোজা হয় সেখানে বিমানে বেতন বিভাগ (পে-গ্রুপ) ১ ও ২ এর ক্যাজুয়াল শ্রমিকদের নাম সর্বপ্রথমে থাকবে।

• আমরা দীঘদিন ধরে আমাদের ন্যায্য দাবি আদায়ে বিমান শ্রমিক লীগ (সিবিএ) কে নিয়ে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন করে যাচ্ছি কিন্তু আমাদের দেখার যেন কেউ নাই। বঙ্গবন্ধুর প্রতিষ্ঠিত রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমানে এত অনিয়ম সত্যিই গ্রহণযোগ্য নয়।

• সরকারের শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী ঘোষনা দিয়েছে আগামী ডিসেম্বর থেকে সকল শ্রমিক প্রভিডেন্ট ফান্ডের আওতায় আসবে, যা ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হবে। আমরা ২,০০০ জন ক্যাজুয়াল শ্রমিক এর থেকে বঞ্চিত হতে চাই না।

• বাংলাদেশে এমন কোন সংস্থা নেই যারা আপনার কাছে ন্যায্য কিছু চেয়ে পায়নি। আমাদের ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিকের একটাই চাওয়া চাকুরী স্থায়ী করণ।

আমরা কার কাছে যাব? কার কাছে বলব? কে শুনবে আমাদের কথা? আমরা নিরুপায়! তাই বাধ্য হয়ে আপনার সমীপে আমাদের আকুল আবেদন। জানি বঙ্গবন্ধু কন্যা কখনো অনিয়মকে প্রশ্রয় দেননি, দিবেনও না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যাদের কেউ নেই তাদের আল্লাহ আছেন, উছিলা হিসাবে আপনি আছেন। আমরা আপনার সন্তান সমতুল্য। বঞ্চিত এই ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিক ও তাদের পরিবার আপনার মুখের দিকে তাকিয়ে আছে। এই ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিক ও তাদের পরিবারের এখন আপনিই একমাত্র ভরসা। আমরা আপনার দুয়ারে হাত পেতেছি। আমরা স্বাধীন দেশের নাগরিক, দীঘদিন যাবৎ বিমানের জন্য স্থায়ী কাজে ক্যাজুয়াল হয়ে শ্রম দিয়েছি। আমাদের ন্যায্য অধিকারের জন্য আপনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এই সোনার বাংলায় আমরা আমাদের মৌলিক অধিকার গুলো চাই। যা পাওয়ার স্বপ্ন আপনি আমাদের দেখিয়েছেন। বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের দ্বায়িত্ব আপনি নিয়েছেন তাহলে আমরা কেন ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিক বঞ্চিত হব?

আপনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায়
বিমান ক্যাজুয়াল শ্রমিকবৃন্দ
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

 

অনুগ্রহ করে লাইক, কমেন্ট এর পাশপাশি পোস্টটি বেশি করে শেয়ার করুন।
✈ বিমান ক্যাজুয়াল

Aviation News

সম্পাদক: তারেক এম হাসান
যোগাযোগ: জোবায়ের অভি, ঢাকা, ফোন +৮৮ ০১৬৮৪৯৬৭৫০৪
ই-মেইল: jobayerovi@gmail.com
যুক্তরাস্ট্র অফিস
ইউএসএ সম্পাদক: মো. শহীদুল ইসলাম
৭১-২০, ৩৫ অ্যাভিনিউ, জ্যাকসন হাইটস, নিউইয়র্ক ১১৩৭২
মোবাইল: +১ (২১২) ২০৩-৯০১৩, +১ (২১২) ৪৭০-২৩০৩
ইমেইল: dutimoy@gmail.com
এডিটর ইন চিফ : মুজিবুর আর মাসুদ ইমেইল: muzibny@gmail.com
©সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত এভিয়েশন নিউজবিডি.কম ২০১৪-২০১৬