হজ মৌসুমঃ যুক্ত হচ্ছে আরও দুই উড়োজাহাজ,নিয়মিত ফ্লাইট কাটছাঁট করবে না বিমান

এই লেখাটি 1004 বার পঠিত

Hajj-bimanতিন বছর ধরে নিজস্ব উড়োজাহাজে হজযাত্রী পরিবহন করছে বিমান। ৫০ থেকে ৬০ হাজার হজযাত্রী পরিবহন করতে গিয়ে হজ মৌসুমে নিয়মিত ফ্লাইট কাটছাঁট করতে হয় বিমানকে। এতে সাধারণ যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েন। উড়োজাহাজ সংকটের কারণে অনেক সময় সাধারণ যাত্রীদের ১০ থেকে ১৭ ঘণ্টা পরও নির্ধারিত গন্তব্যে পেঁৗছাতে হয়েছে। এমনকি একই কারণে হজযাত্রীদেরও দুই থেকে তিন দিন পরে সৌদি আরবে পেঁৗছাতে হয়েছে। এবার এসব তিক্ত অভিজ্ঞতা এড়াতে আসন্ন হজ মৌসুমে নিয়মিত রুটের ফ্লাইট কাটছাঁট না করতে দুটি উড়োজাহাজ লিজ নিয়েছে বিমান।

তবে এ নিয়েও অভিযোগ উঠেছে। গত দুই বছর হজযাত্রী পরিবহনে লিজে উড়োজাহাজ নেয়নি বিমান। এবার অভিযোগ উঠেছে, বহরের নিজস্ব উড়োজাহাজ বসিয়ে রেখে ভাড়ায় আনা উড়োজাহাজ চালানো হচ্ছে। পরিকল্পিতভাবে সিডিউল বিপর্যয় ঘটনো হচ্ছে। আর এসব করেই এবার হজের জন্য এয়ারবাস লিজ নেওয়া হয়েছে। তবে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় বলছে, একটি উড়োজাহাজ বিকল থাকায় চলতি বছর হজের তিন মাসের জন্য আরও দুটি উড়োজাহাজ ভাড়া করা করছে বিমান। হাজিদের নির্বিঘ্নে আনা-নেওয়ার জন্য বিমানবহরে যুক্ত বিভিন্ন মেয়াদে লিজে আনা সাতটির মধ্যে দুটি উড়োজাহাজ হজ ফ্লাইট হিসেবেও ব্যবহার করা হবে। এ ছাড়া নিয়মিত ফ্লাইটেও হজযাত্রী আনা-নেওয়া করবে বিমান।

বিমান সূত্র জানায়, চলতি বছর তারা ৬৩ হাজার হজযাত্রী পরিবহন করবে বলে আশা রাখছে। এর জন্য দুটি উড়োজাহাজ তিন মাসের জন্য লিজ নেওয়া হয়েছে। মালয়েশিয়ার ফ্লাই গ্গ্নোবাল কোম্পানির উড়োজাহাজ দুটি বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের পর্যবেক্ষণ শেষে এ সপ্তাহে বিমানবহরে যুক্ত হবে। এ জন্য সিভিল এভিয়েশন ও বিমানের একটি কারিগরি বিশেষজ্ঞ দল মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছে। চলতি বছরে হজ ফ্লাইট শুরু হবে আগামী ২৪ জুলাই। হজযাত্রীদের নিয়ে বিমানের সর্বশেষ ফ্লাইট ২৬ আগস্ট ঢাকা ছাড়বে। এ ছাড়া হাজিদের দেশে ফেরাতে ৫ সেপ্টেম্বর বিমানের ফিরতি ফ্লাইট শুরু হয়ে তা ৫ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে।

বিমান সংশ্লিষ্টরা জানান, এ বছর মোট এক লাখ ২৭ হাজার যাত্রী পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশে সৌদি আরব যাবেন। এর মধ্যে বিমান পরিবহন করবে ৬৩ হাজার ৫০০ হজযাত্রী। বাকিদের সৌদিয়া এয়ারলাইন্স পরিবহন করবে।

বিমানের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ বলেন, হজ ও নিয়মিত সিডিউল বিপর্যয় এড়াতে বিমান বেশ সতর্ক রয়েছে। সৌদি কর্তৃপক্ষ সঠিক সময়ে ভিসা দিলে হজযাত্রীদের কোনো ভোগান্তিতে পড়তে হবে না। সিডিউল বিপর্যয় এড়াতে স্বল্প সময়ের জন্য দুটি উড়োজাহাজ লিজ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও নিয়মিত ফ্লাইটের পাশাপাশি চারটি সুপরিসর বোয়িং উড়োজাহাজে হজযাত্রী পরিবহন করা হবে। এবার কোনো ফ্লাইট সিডিউলে কাটছাঁটও করা হবে না।

বেসামরিক বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘হজ ফ্লাইট পরিচালনা সরকারের জন্য একটি স্পর্শকাতর বিষয়। এটি নির্বিঘ্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। গত বছর শুরুর দিকে হজযাত্রী সংকটে অনেক উড়োজাহাজকে খালি যেতে হয়েছে। তবে এবার এসব বিষয় নজরে রাখা হয়েছে। বহরের উড়োজাহাজ প্রস্তুত রাখার পাশাপাশি শুধু হজ মৌসুমের জন্য দুটি উড়োজাহাজ লিজ নেওয়া হয়েছে। আগে হজ ফ্লাইট চালাতে গিয়ে আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ অনেক ফ্লাইট কাটছাঁট করতে হতো, এতে যাত্রীরা কষ্টে পড়তেন। এটা বন্ধে এবার বিমান সজাগ রয়েছে। হজ ফ্লাইট ও নিয়মিত রুটের যাত্রীদের সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে একটি সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।’

প্রসঙ্গত, বর্তমানে বিমানবহরে উড়োজাহাজের সংখ্যা ১৩টি। এর মধ্যে ছয়টি বিমানের নিজস্ব ও বাকি সাতটি বিভিন্ন মেয়াদে লিজে নেওয়া। নিজস্ব কেনা নতুন চারটি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর এবং দুটি নতুন ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ রয়েছে বিমান বহরে। এ ছাড়া দীর্ঘমেয়াদি লিজে দুটি বোয়িং ৭৭৭-২০০ ইআর, দুটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০, দুটি ড্যাশ-৮ কিউ ৪০০ উড়োজাহাজ রয়েছে। সর্বশেষ আট মাসের জন্য বিমান বহরে যুক্ত হয়েছে আরেকটি এয়ারবাস এ-৩৩০ উড়োজাহাজ।

Aviation News