আগেও ধর্ষণ করে ভিডিও ছড়ানোর হুমকি দেন ইভান

এই লেখাটি 136 বার পঠিত

rape-620170706112803জন্মদিনের কথা বলে ফাঁকা বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত ব্যবসায়ীর ছেলে বাহাউদ্দিন ইভান আগেও একবার এই তরুণীকে ধর্ষণ করেন। বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তখন এই তরুণীকে ধর্ষণ করেন ইভান। ধর্ষণের বিষয়ে ‘মুখ খুললে’ ইন্টারনেটে আপত্তিকর ভিডিও ছেড়ে দেয়ার হুমকিও দেন তিনি।

পুলিশকে দেয়া অভিযোগে এসব তথ্য জানান ধর্ষণের অভিযোগকারী এই তরুণী। ধর্ষণের ঘটনায় বনানী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন তিনি।

মামলার এজাহার থেকে জানা জানায়, ইভান এর আগেও তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একবার ধর্ষণ করেন। ধর্ষণের বিষয়ে কাউকে বললে আপত্তিকর ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেন ইভান। হুমকি পেয়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মামলা করার বিষয়ে কথা বলেন। অবশেষে সুস্থ হয়ে বুধবার তিনি মামলাটি করেন।

বনানী থানা সূত্র জানায়, বাহাউদ্দিন ইভানের বাবা ব্যবসায়ী। বনানীর একটি শপিংমলের মালিক তিনি। ইভান বিবাহিত এবং তার এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

সেই রাতের বিষয়ে অভিযোগকারী তরুণী জানান, ইভান বনানীর ২ নম্বর রোডের ৫/এ নম্বরের ন্যাম ভিলেজে থাকেন। মঙ্গলবার রাতে ইভান ‘ইচ্ছার বিরুদ্ধে’ ও ‘জোরপূর্বক’ তাকে ধর্ষণ করেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গত ১১ মাস আগে তাদের বন্ধুত্ব হয়। এরই সূত্র ধরে দুইজনের ঘোরাঘুরি ও দেখা-সাক্ষাৎ হতো। গত ৪ মাস আগে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক হয়। এই সম্পর্কের সূত্র ধরে মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে ইভান তাকে ফোন করে জন্মদিনের দাওয়াত দেয় ও বাড়িতে আসতে বলে। সেই রাতেই তাদের সম্পর্কের বিষয়টি ইভান তার মাকে বলবে বলে জানায় এবং তার মা পরিচয়ে এক মহিলার সঙ্গে ফোনে কথা বলায়। ওই কথিত মা তাকে জন্মদিনের দাওয়াতে বাসায় যেতে বলে।

তরুণী তার বড় বোনের সঙ্গে কথা বলে রাত সাড়ে ১০টায় রিকশায় করে ইভানের বাড়িতে যায়। তবে বাড়িতে গিয়ে সেখানে কাউকে দেখতে পায়নি। ফোনে কথা বলা মা’র সঙ্গে দেখা করতে চাইলে ইভান ওই তরুণীকে বলেন, বাবা-মা অসুস্থ ঘুমিয়ে আছে, জোরে কথা বলা যাবে না।

অভিযোগকারী তরুণী পুলিশকে জানান, সেই রাতে বাসায় গিয়ে তিনি কোনো ধরনের জন্মদিনের অনুষ্ঠানের আলামত দেখতে পাননি। ভয়ে বাড়ি ফিরতে চাইলে ইভান তাকে বাড়ি ফিরতে দেননি। তারপর তারা রাতের খাবার খান এবং ইভান তাকে জোর করে নেশাজাতীয় দ্রব্য খাওয়ান। নেশাজাতীয় দ্রব্য খেতে অস্বীকৃতি জানালে ইভান তাকে বলে, একদিন খেলে কিছু হবে না। এরপর রাত দেড়টার দিকে ইভান ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণ করেন।

ধর্ষণের সময় আমি চিৎকার চেঁচামেচি করতে থাকলে রাত সাড়ে ৩টার দিকে তার সঙ্গে থাকা ব্যাগটি রেখে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয় ইভান। পরে এক পথচারীর সাহায্যে তিনি নিজের বাসায় যান।

তরুণী দাবি করেন, সেই রাতে ইভান যে ব্যাগটি রেখে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয় সেটিতে ওই মেয়ের ৩টি ড্রেস, ২টি জিন্স প্যান্ট, ১টি কুর্তা, ৩টি মোবাইল চার্জার, সিমকার্ড, মেমোরি কার্ড এবং নগদ ১৫ হাজার টাকা ছিল।

বনানী থানা জানিয়েছে, বনানী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুলতানা আক্তার মামলাটির তদন্ত করবেন। এ বিষয়ে বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল মতিন সাংবাদিকদের জানান, প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য তরুণীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। সেখান থেকে তাকে তেজগাঁওয়ে ভিকটিম সাপোর্টে সেন্টারে রাখা হয়েছে। বৃহস্পতিবার তার ডাক্তারি পরীক্ষা করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৮ মার্চ বনানীর রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের দাওয়াতে ডেকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে শাফাত আহমেদ, শাফাতের বন্ধু নাঈম আশরাফ ওরফে আবদুল হালিমসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। সব আসামি বর্তমানে কারাগারে আছেন।

Aviation News