বেতন পাননি বিমানের ১২০০ শ্রমিক-কর্মচারী

bimanরাষ্ট্রায়ত্ত উড়োজাহাজ পরিবহন সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের নিয়মিত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জুন মাসের বেতনসহ ঈদ বোনাসের অর্থ পরিশোধ করা হয়েছে গত সপ্তাহে। কিন্তু সংস্থার চুক্তিভিত্তিক (ক্যাজুয়াল) ১ হাজার ২০০ শ্রমিক-কর্মচারীকে ঈদ বোনাস দেয়া হলেও জুন মাসের বেতন দেয়া হয়নি। এ নিয়ে তাদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বিমান শ্রমিক লীগের সভাপতি ও সিবিএ নেতা মো. মশিকুর রহমান বলেন, চুক্তিভিত্তিক কাজ করা এসব শ্রমিকের দৈনিক মজুরি মাত্র ৫০০ টাকা। কর্তৃপক্ষ যদি জুন মাসের ১০ দিনের বেতনও পরিশোধ করত, তা হলে ১ হাজার ২০০ কর্মীর জন্য প্রয়োজন হতো ৬০ লাখ টাকা। যা রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের জন্য খুব বেশি বোঝা হওয়ার কথা নয়। কারণ বিমান এখন প্রতি বছর লাভ করছে।

তিনি বলেন, চুক্তিভিত্তিক যারা কাজ করছেন, তারা আর্থিকভাবে খুব একটা সচ্ছল নয়। সে কারণে মানবিক দিক বিবেচনা করে তাদের বেতন পরিশোধ করা উচিত ছিল। দেশের গার্মেন্টস শিল্পসহ সব ধরনের প্রতিষ্ঠানে কমপক্ষে ২০ দিনের বেতন দেয়া হয়েছে। অথচ বিমান কর্মচারীদের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণ করা হয়েছে। বৈষম্যের শিকার এসব কর্মচারীর জুন মাসের ২০ দিনের বেতন অবিলম্বে পরিশোধের জন্য বিমান প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

চুক্তিভিত্তিক শ্রমিক-কর্মচারীদের অভিযোগ, বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এ মুহূর্তে দেশে নেই। আর দায়িত্বে থাকা উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারাও বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করতে ব্যর্থ হয়েছেন। ফলে এবার ঈদে বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের হতভাগা ১ হাজার ২০০ শ্রমিক-কর্মচারী। তবে প্রত্যেককে ২ হাজার ৮০০ টাকা করে ঈদ বোনাস দেয়া হয়েছে। অথচ প্রতিটি ফ্লাইটে ৯ থেকে ১০ টন মালামাল টেনে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে কাজ করে যাচ্ছেন এসব কর্মচারী। কিন্তু এত কিছু করার পরও কর্তৃপক্ষের মন গলাতে পারেনি তারা।

ক্ষোভ প্রকাশ করে সিবিএ নেতা মো. মশিকুর রহমান বলেন, বিমানকে অ্যাসেনসিয়াল সার্ভিস ঘোষণা করার পরে তার প্রথম ফলাফল পেলেন অসহায় ১ হাজার ২০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিক-কর্মচারী। তারা এবার ঈদের আগে জুন মাসের কোনো বেতন পাবেন না। যদিও বিমানমন্ত্রী সংসদের চলতি অধিবেশনে জানিয়েছেন, গত দুই বছরে বিমানের লাভ ৬০০ কোটি টাকা। সরকারের রাজস্ব তহবিলে প্রতিষ্ঠানটি জমা দিয়েছে ৩০০ কোটি টাকা। তবুও এসব কর্মীকে ঈদের আগে বেতন দেয়া হলো না।

জসিম উদ্দিন নামে বিমানের এক কর্মচারী জানান, যেসব কর্মকর্তার সিদ্ধান্তে এটা হয়েছে, তাদের বেতন-বোনাস কিন্তু ব্যাংকের হিসাবে চলে গেছে ঈদের সাতদিন আগে। অথচ আমরা রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে ঈদ-পূজায় ও অন্যান্য ছুটির দিনেও কাজ করি। কিন্তু আমাদের শ্রমের কোনো মূল্য নেই। ওই সব কর্তাব্যক্তি তাদের মানুষ না যন্ত্র মনে করেন, প্রশ্ন রাখেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত বছর ঈদে বিমানের চুক্তিভিত্তিক শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন দিতে চায়নি বিমান প্রশাসন। পরে সিবিএ নেতাদের কঠোর অবস্থানের মুখে বেতন দিতে বাধ্য হয়।

Aviation News

সম্পাদক: তারেক এম হাসান
যোগাযোগ: জোবায়ের অভি, ঢাকা, ফোন +৮৮ ০১৬৮৪৯৬৭৫০৪
ই-মেইল: jobayerovi@gmail.com
যুক্তরাস্ট্র অফিস
ইউএসএ সম্পাদক: মো. শহীদুল ইসলাম
৭১-২০, ৩৫ অ্যাভিনিউ, জ্যাকসন হাইটস, নিউইয়র্ক ১১৩৭২
মোবাইল: +১ (২১২) ২০৩-৯০১৩, +১ (২১২) ৪৭০-২৩০৩
ইমেইল: dutimoy@gmail.com
এডিটর ইন চিফ : মুজিবুর আর মাসুদ ইমেইল: muzibny@gmail.com
©সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত এভিয়েশন নিউজবিডি.কম ২০১৪-২০১৬