ঢাকা-কক্সবাজারে উড়ল বোয়িং ৭৩৭-৮০০

এই লেখাটি 285 বার পঠিত

Boaing73720170518190804অত্যাধুনিক এয়ারক্র্যাফট বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ দিয়ে কক্সবাজার রুটে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চালানো শুরু করেছে রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

গতকাল বৃহস্পতিবার ১৫২ জন যাত্রী নিয়ে বিমানের বিজি-৪৩৩ ফ্লাইটটি বিকেল ৫ টা ৬ মিনিটে ঢাকা থেকে কক্সবাজারের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। যা কক্সবাজারে পৌঁছায় বিকেল ৫ টা ৩৯ মিনিটে।

পরে কক্সবাজার থেকে ফ্লাইটটি ঢাকার উদ্দেশে ১০১ জন যাত্রী নিয়ে ছেড়ে আসে বিকেল ৬ টা ১২ মিনিটে। বিজি-৪৩৪ নম্বর ফ্লাইটটি ঢাকা এসে পৌঁছায় ৬ টা ৪৫মিনিট।

কক্সবাজার বিমানবন্দরের ম্যানেজার সাধন কুমার মহন্ত জানান, দেশি-বিদেশি পর্যটকদের যাতায়াতের সুবিধার্থে ঢাকা -কক্সবাজার রুটে বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজের যাত্রা শুরু হয়েছে।

জানা যায়, চল্লিশের দশকে ব্রিটিশরা যুদ্ধবিমান উড্ডয়ন-অবতরণের জন্য কক্সবাজারে প্রথম এয়ারফিল্ড নির্মাণ করে। সে সময় দুই আসনের যুদ্ধ বিমানের জন্য এটি নির্মিত হলেও সময়ের ব্যবধানে এখন দেড় শতাধিক যাত্রী বহনকারী উড়োজাহাজও উঠা-নামা করতে পারে ওই বিমানবন্দরে।

স্বাধীনতা পরবর্তীকালে ছোটখাটো বাণিজ্যিক প্লেন চালানোর উপযোগী করে গড়ে তোলা হয় কক্সবাজার বিমানবন্দরকে। প্রথমে অ্যাডভান্স টার্বো-প্রপ (এটিপি) প্লেন চলাচল করলেও বিগত এক দশকে জেট এয়ারক্র্যাফ্ট এমব্রয়ার-১৪৫ বা এটিআর ৭২-৫০০ কিংবা ড্যাস-৮ দিয়ে যাত্রী পরিচালনা করে।

বর্তমানে ১৬২ আসনের বোয়িং-৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ দিয়ে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে বিমান।

কক্সবাজার বিমানবন্দরে রানওয়ের দৈর্ঘ্য ৬ হাজার ৭৭৫ ফুট থেকে ৯ হাজার ফুট করা হয়েছে। রানওয়ের প্রস্থ উন্নীত হয়েছে ১৫০ ফুট থেকে ২০০ ফুটে।

 

Aviation News