২০১৭ সালে ঘাতক রোবট নিয়ে জাতিসংঘের সিদ্ধান্ত

এই লেখাটি 95 বার পঠিত

theunhasdecidedtotackletheissueofkillerrobotsin2017মানুষ হত্যাকারী স্ব-চালিত রোবটের অনুমোদন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে জাতিসংঘ।

জেনেভায় অনুষ্ঠিত ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন অন কনভেনশনাল উইপনস-এ অংশগ্রহণকারী ১২৩টি দেশ স্ব-চালিত রোবটের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের লক্ষ্যে সরকারী বিশেষজ্ঞদের নিয়ে ২০১৭ সালে একটি দল গঠনের পক্ষে তাদের ভোট প্রদান করেছেন।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ-এর বরাতে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট রিকোড জানিয়েছে, স্টিভ ওজনিয়াক, ইলন মাস্ক-এর মত সিলিকন ভ্যালির অভিজাত ব্যাক্তিরা হত্যাকারী রোবটের উন্নয়নে তাদের উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তারা উভয়ই আগের বছর জাতিসংঘের কাছে লেখা এক চিঠিতে বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে প্রাণঘাতী স্ব-চালিত অস্ত্র নির্মাণের উপর আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহবান জানিয়েছেন।

এ ছাড়াও স্টিফেন হকিং, গুগলের গবেষণা পরিচালক পিটার নরভিগ এবং মাইক্রোসফটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এরিক হরভিৎজসহ আরও শহস্রতাধিক শীর্ষস্থানীয় ব্যাক্তিবর্গ চিঠিতে স্বাক্ষর করে এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করতে আহ্বান জানিয়েছেন।

অন্যদিকে চীন এ বছরের শুরুতে সদম্ভে জানিয়েছিল তারা ক্রুজ মিসাইলে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা যোগ করতে যাচ্ছে। আর জেনেভা বলেছে প্রাণঘাতী স্ব-চালিত রোবট নতুন আন্তর্জাতিক ফোরামের জন্য খুবই হঠকারী সিদ্ধান্ত।

আর্জেন্টিনা, পেরু, পাকিস্তান, কিউবা এবং মিসরসহ ১৯টি দেশ হত্যাকারী রোবটের উপর আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য আহ্বান করেছে। অন্যদিকে মাত্র পাঁচটি দেশ এই ব্যবস্থার পক্ষে মত দিয়েছে।

মাস্ক বরাবরই প্রাণঘাতী রোবটিক্স নিয়ে তার ভয়ের ব্যাপারে বিশেষভাবে সোচ্চার ছিলেন। তিনি সতর্ক করে বলেছেন যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা “আমাদের অস্তিত্বের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি” এবং “পারমাণবিক অস্ত্রের থেকেও বেশি বিপজ্জনক।“

হকিং ২০১৪ সালে বলেন “পূর্ণ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিকাশ মানবসভ্যতার বিনাশের প্রধান কারণ হতে পারে।“

জাতিসংঘে ভারতের রাষ্ট্রদূত আমান্দিপ সিং গিল-কে হত্যাকারী রোবট সংক্রান্ত পদক্ষেপ বিষয়ে এই প্রক্রিয়ার চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়েছে।

Aviation News