২০২২ সালের ফুটবল বিশ্বকাপের মূল বাছাইপর্বে বাংলাদেশ

এই লেখাটি 69 বার পঠিত
সংগৃহীত

২০২২ সালের বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠেছে বাংলাদেশ

ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতায় গোল পায়নি বাংলাদেশ। কাজেই লাওসকে হারানোর স্বপ্নপূরণ হল না এবার। তবে স্বস্তির ড্র মিলেছে। এতে ২০২২ সালের কাতার বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠেছে বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার বাছাইয়ের প্রথম রাউন্ডে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে দুই দলের ফিরতি পর্বের ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছে। প্রথম পর্বে লাওসের মাঠে ১-০ ব্যবধানে জিতেছিল বাংলাদেশ।

একাদশে দুটি পরিবর্তন আনা হয়েছে বাংলাদেশ দলের। আরিফুর রহমান ও মতিন মিয়ার বদলে জায়গা পান মামুনুল ইসলাম এবং প্রথম পর্বে বদলি হিসেবে নেমে গোল করা রবিউল হাসান।

তবে বাংলাদেশের জন্য দ্বিতীয় পর্বের খেলায় ড্র যথেষ্ট ছিল। বিপরীতে লাওসকে অন্তত ২-১ গোল জিততে হত। অথচ প্রথমার্ধে স্বাগতিকদের তেমন কোনো পরীক্ষাই নিতে পারেনি দলটি।

তবে সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি বাংলাদেশ। অষ্টম মিনিটে জামাল ভূইয়ার ফ্রি কিকে প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের হেডের পর বল পোস্ট দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার আগে পা ছোঁয়াতে পারেননি ইয়াসিন খান। সপ্তদশ মিনিটে নাবীব নেওয়াজ জীবন গোলরক্ষক বরাবর শট নেন।

পঁচিশতম মিনিটে ইয়াসিনের দুর্বল ব্যাক পাসে বিপদে পড়তে পারত বাংলাদেশ। দ্রুত ছুটে এসে বিপদমুক্ত করলেন রানা।

পাল্টা আক্রমণে বিশ্বনাথ ঘোষের লম্বা করে বাড়ানো বল গোলরক্ষকের গায়ে লেগে পেয়ে যান জীবন। কিন্তু তিনিও ঠিকানা খুঁজে পাননি।

৩৭তম মিনিটে ভালো একটি সুযোগ নষ্ট হয় বাংলাদেশের। রবিউলের উঁচু করে বাড়ানো বল গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে জীবনের হেডে জালে জড়ানোর চেষ্টা ক্রসবারের ওপর দিয়ে উড়ে যায়।

বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে ৪০টি দল আট গ্রুপে ভাগ হয়ে খেলবে। প্রতি গ্রুপে থাকবে পাঁচটি দল। রাউন্ড রবিন পদ্ধতিতে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ম্যাচে মুখোমুখি হবে দলগুলো। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন এবং সেরা চার রানার্স-আপ বাছাই পর্বের পরবর্তী ধাপে খেলার সুযোগ পাবে।

বাংলাদেশ ফুটবল দল: আশরাফুল ইসলাম রানা, রহমত মিয়া, ইয়াছিন খান, টুটুল হোসেন বাদশা, জামাল ভূঁইয়া, মামুনুল ইসলাম, নাবীব নেওয়াজ জীবন, বিশ্বনাথ ঘোষ, মাশুক মিয়া জনি (মাহবুবুর রহমান সুফিল), বিপলু আহমেদ (মোহাম্মদ ইব্রাহিম) ও রবিউল হাসান (সোহেল রানা)।

Aviation News