রোজা নিয়ে প্রতিযোগিতা করতাম আমরা : নাজিয়া হক অর্ষা

এই লেখাটি 60 বার পঠিত
নাজিয়া হক অর্ষা

রোজা নিয়ে প্রতিযোগিতা করতাম আমরা : নাজিয়া হক অর্ষা।

পবিত্র রমজান মাসে রোজা রাখছেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। তারকাদের ধর্ম পালন নিয়ে, নামাজ-রোজা নিয়ে ভক্তদের অনেক কৌতূহল। তারকারাও ধর্ম পালন করেন। মুসলিম তারকারা রোজা রাখেন। রোজা নিয়ে শুটিং করেন, ব্যস্ত থাকেন নানা রকম কাজে।

সবার মতো তাদেরও আছে রোজা রাখার অনেক মজার স্মৃতি। তাদের ভিড়ে লাক্স তারকা নাজিয়া হক অর্ষা জানিয়েছেন তার রোজা রাখার মধুর স্মৃতি।
অর্ষা বলেন, ‘অনেক ছোটবেলা থেকেই রোজা রাখি আমি। চতুর্থ অথবা পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ার সময় থেকেই রোজা রোজা রাখার চেষ্টা করেছি। রোজা নিয়ে অনেক মজার স্মৃতি আছে। অনেক দিন ভোরে উঠতে চাইলেও আমাকে ডেকে দেওয়া হতো না। আমি আম্মুর উপর রাগ করতাম। আম্মু বলতো এখন খেয়ে নাও তাহলে এখন থেকেই তোমার রোজ শুরু।

আবার কোনো কোনো দিন ভোরে উঠে সেহেরি খেতাম, সকালে ঘুম থেকে উঠে নাস্তাও করতাম। আবার দুপুরবেলাতেও খেতাম। ভাবতাম একদিনে তিনটা রোজা হয়ে গেল। আমি এটাই বিশ্বাস করতাম। পরে যখন আর একটু বড় হলাম তখন আম্মু শিখিয়ে দিলেন রোজা আসলে কী?’

অর্ষা আরও বলেন, ‘ক্লাস সিক্স থেকেই নিয়মিত রোজা রাখি। ছোটবেলায় রোজা পালন করতাম বেশ উৎসব মুখর পরিবেশে। কাজিনদের সঙ্গে রোজা রাখা নামাজ পড়া নিয়ে রিতি মতো প্রতিযোগিতা চলতো। কে কার চেয়ে বেশি রোজা রাখতে পারে। রোজা নিয়ে প্রতিযোগিতা করতাম আমরা। ’

সেই সময়ের রোজা আর এই সময়ের রোজা নিয়ে অর্ষা বললেন, ‘ইফতারির সময়ও অনেক মজা হতো সেই সময়। তখন ইফতারিতে যা ইচ্ছে খেয়ে নিতাম। প্রচুর ভাজা পোড়া পছন্দ ছিল আমার। এখন দই চিড়া এই সব খাই। যে সব খাবার খেলে সুস্থ থাকতে পারি সেই সব খাবার খাই। তেলের খাবার থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করি।

সব সময় প্রথম রোজার ইফতারি বাড়িতেই করি। শবে কদরের রোজা, শেষ রোজার ইফতারি বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে করার চেষ্টা করি। আবার অন্যান্য দিন ইফতারের আগে শুটিং শেষ করতে পারলে বাড়ি চলে আসি।’

বর্তমানে ঈদের নাটকের শুটিং নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন অর্ষা। সম্প্রতি ‘তোতা মিয়ার হানিমুন’ শিরোনামের একটি নাটকে অভিনয় করেছেন তিনি। এ নাটকে তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন সজল।আসছে ঈদের জন্য এটি নির্মাণ করেছেন আলী সুজন। ঈদের দিন বিকেল সাড়ে ৫টায় এশিয়ান টিভিতে প্রচার হবে ‘তোতামিয়ার হানিমুন’।

Aviation News