বায়ার্নকে হারিয়ে শেষ আটে লিভারপুল

এই লেখাটি 70 বার পঠিত
liverpool

বায়ার্নকে হারিয়ে শেষ আটে লিভারপুল।

প্রতিযোগিতামূলক ফুটবলে লিভারপুলের বিপক্ষে জয় অধরাই থাকল বায়ার্ন মিউনিখের। ফের ইংলিশ দলটির কাছে হেরে গেল জার্মান চ্যাম্পিয়নরা। ঘরের মাঠে খেলা বলে আশায় বুক বেঁধেছিলেন বায়ার্ন সমর্থকরা। তবে আশায় গুঁড়েবালি। তাদের স্তব্ধ করে দিয়ে ৩-১ গোলে জিতে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আটের টিকিট কেটেছেন অলরেডরা।
শেষ ষোলোর প্রথম লেগে লিভারপুলের দূর্গ অ্যানফিল্ডে গোলশূন্য ড্র করে বায়ার্ন মিউনিখ। ফলে নিজ ডেরায় ফেভারিট ছিলেন বাভারিয়ানরা। কিন্তু সেই গেরো খুলতে পারলেন না তারা। উল্টো উড়ে গেলেন। অবশ্য আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায় শুরুতে ছন্দময় ফুটবল উপহার দেয় বায়ার্ন। তবে গোলমুখ খুলতে পারেননি স্বাগতিকরা।
ধীরে ধীরে গুছিয়ে ওঠে লিভারপুল। ফলে আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে জমে ওঠে খেলা। কার্যত খেলা ওপেন হয়ে যায়। তবে এগিয়ে যান অতিথিরা। ২৬ মিনিটে দলকে লিড এনে দেন সাদিও মানে। মাঝমাঠ থেকে ফন ডাইকের উড়ে আসা বল ধরে ম্যানুয়েল ন্যুয়ারকে এড়িয়ে ফাঁকা জালে বল পাঠান ছন্দে থাকা সেনেগালিজ ফরোয়ার্ড।
পিছিয়ে পড়ে আক্রমণের ধার বাড়ায় বায়ার্ন। তবে সাফল্য মিলছিল না। ৩৯ মিনিটে ভাগ্যের ফেরে সমতায় ফেরে দলটি। সার্জে জিনাব্রির নিচু ক্রস ঠেকাতে গিয়ে বল জালে জড়ান জোয়েল মাতিপ। লিভারপুলের চতুর্থ খেলোয়াড় হিসেবে ইউরোসেরা টুর্নামেন্টে আত্মঘাতী গোল করলেন এ রক্ষণসেনা।
দ্বিতীয়ার্ধে চিরচেনা ছন্দে লিভারপুল। ফলে ব্যবধান বাড়তেও সময় লাগেনি। ৬৯ মিনিটে ফের এগিয়ে যায় রেডরা। জেমস মিলনারের দারুণ কর্নারে দুর্দান্ত হেডে বল ঠিকানায় পাঠান ভার্জিল ফন ডাইক। ৭৫ মিনিটে বিপজ্জনক জায়গায় বল পেয়েও নিশানাভেদ করতে পারেননি মোহামেদ সালাহ। পরক্ষণেই সেই ভুল পুষিয়ে দেন তিনি।
৮৪ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে সাদিও মানের উদ্দেশে উঁচু করে বল বাড়ান মিসরীয় ফরোয়ার্ড। দারুণ হেডে ন্যুয়ারকে ফাঁকি দিয়ে নিজের জোড়া গোল করেন তিনি। পরে গোল পায়নি কোনো দলই।
অনবদ্য জয়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, ম্যানচেস্টার সিটি ও টটেনহ্যাম হটস্পারের পর চতুর্থ ইংলিশ দল হিসেবে এবারের আসরের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠল লিভারপুল।

Aviation News