ফরিদপুরে সিঁধ কেটে ডাকাতি, প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

এই লেখাটি 49 বার পঠিত
ফরিদপুরে

ফরিদপুরে সিঁধ কেটে ডাকাতি, প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ।

ফরিদপুর সদর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের একটি গ্রামে সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতিকালে ওই বাড়িতে থাকা প্রবাসীর স্ত্রী (২০) ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার দিবাগত রাতে ডাকাতি ও ধর্ষণের এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত এক ব্যক্তিক আটক করেছে ফরিদপুর কোতয়ালী থানা পুলিশ।

জানা যায়, ফরিদপুর সদর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের একটি বাড়িতে রোববার রাতে ৪-৫ জনের ডাকাত দল সিঁধ কেটে ঘরে প্রবেশ করে। ঘরে প্রবেশ করেই ঘরে থাকা এক বৃদ্ধা ও তার নাতনিকে (প্রবাসী স্ত্রী) অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ঘরে থাকা নগদ এক লাখ ৩০ হাজার টাকা, স্বর্ণালংকার লুটে নেয়। এ সময় প্রবাসীর স্ত্রী বাধা দিলে ডাকাতরা তাকে কুপিয়ে জখম করে। পরে ধর্ষণ করে ফেলে রেখে যায়। রাতেই দ্রুত তাকে উদ্ধার করে প্রথমে ফরিদপুর সদর হাসপাতালে পরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত করতে মঙ্গলবার তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে।
প্রবাসীর স্ত্রীর ছোট ভাই বলেন, আমি ঢাকায় থাকি। এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে ফরিদপুরে এসেছি। বাড়িতে এসে জেনেছি রাতে দাদির সঙ্গে আমার বোন ঘরে ঘুমিয়ে ছিল। বোনের স্বামী বিদেশে থাকায় আমাদের বাড়িতেই বোন থাকে। রাতে দাদির সঙ্গে ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় ৪-৫ জন ডাকাত সিঁধ কেটে ঘরে প্রবেশ করে আমার বোন ও দাদিকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে। পরে ঘরে থাকা নগদ টাকা ও মালামাল লুটে নেয়। মালামাল লুটে নেয়ার সময় আমার বোন তাদের বাধা দেয়ায় তারা কুপিয়ে জখম করে। পরে তার ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। আমার বোন এখন ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, ঘটনার সময় আমার বোন মাসুদ ও উজ্বল নামে দুই ব্যক্তিকে চিনে ফেলায় তার ওপর আরও বেশি অত্যাচার করা হয়।

তিনি বলেন, বোন অসুস্থ থাকায় তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করতে দেরি হচ্ছে। মঙ্গলবার তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হবে। এ ঘটনায় আমরা কোতয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেছি।

তবে এ বিষয়ে ফরিদপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফ এম নাসিম বলেন, ডাকাতি বা ধর্ষণের কোনো ঘটনা ঘটেনি। জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে কুপিয়ে জখমের ঘটনা ঘটেছে।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। মাসুদ নামের এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে।

Aviation News