চলতি বছরেই বিমানের ঢাকা-চীন রুটে ফ্লাইট চালু

এই লেখাটি 312 বার পঠিত
bimam

চলতি বছরেই বিমানের ঢাকা-চীন রুটে ফ্লাইট চালু।

অবশেষে চীনের বাণিজ্যিক নগরী গুয়াংজুতে ফ্লাইট চালু করতে যাচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। আগামী জুলাইয়ে বহুল প্রত্যাশিত এই ফ্লাইটের যাত্রা শুরুর পর অক্টোবরে চালু হবে সৌদি আরবের মদিনাগামী সরাসরি ফ্লাইট।
ব্যবসায়ীরা বলছেন, গুয়াংজুতে সরাসরি ফ্লাইট চালু হলে অনেকটাই কমবে পণ্য আমদানি-রফতানির ব্যয় ও সময়। আর মদিনার ফ্লাইটে উপকৃত হবেন প্রবাসী শ্রমিক ও হজ যাত্রীরা। তবে দু’টি রুট লাভজনক করতে সেবার মান ও শিডিউল ঠিক রাখার তাগিদ দিয়েছেন তারা।
বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক অংশীদার চীন। দেশটি থেকে বছরে প্রায় ১২০০ কোটি ডলারের পণ্য আমদানি করে বাংলাদেশ। চীনে রফতানি হয় বাংলাদেশের তৈরি পোশাকসহ বেশ কিছু পণ্য। বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ এই রুটে ফ্লাইট চালুর দাবিও দীর্ঘ দিনের।
এর আগে কয়েকবার উদ্যোগ নিলেও সফল হয়নি বিমান। অবশেষে আগামী জুলাইয়ে ঢাকা-গুয়াংজু রুটে যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে বিমানের ফ্লাইট। এছাড়া, প্রবাসী শ্রমিক ও ওমরাহ যাত্রীদের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে অক্টোবরে সৌদি আরবের মদিনায় ফ্লাইট চালু করবে সংস্থাটি।
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের জনসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ বলেন, এই ফ্লাইট পরিচালনার জন্য আমরা চীন সরকারের কাছে আবেদন করেছিলাম। আমরা সেই অনুমোদন পেয়েছি। আগামী জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহ থেকে আমরা ঢাকা-গুয়াংজু রুটে ফ্লাইট পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগামী ২৭ অক্টোবর থেকে ঢাকা-মদিনা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করছি।
ব্যবসায়ীরা বলছেন, গুয়াংজুতে সরাসরি ফ্লাইট চালু হলে সহজ হবে পণ্য আমদানি ও রফতানি, কমবে ব্যয়। আর মদিনা ফ্লাইটে ওমরাহ যাত্রীদের পাশাপাশি উপকৃত হবেন সৌদি প্রবাসী বাংলাদেশি শ্রমিকরা। তবে যাত্রী আকর্ষণে সাশ্রয়ী ভাড়া ও সেবার মান ঠিক রাখার আহ্বান তাদের।
বাংলাদেশ ফ্রেইটফলওয়াডার অ্যাসোসিয়েশনের এক পরিচালক বলেন, যদি ঠিকভাবে মার্কেটিং করতে পারে তবে ঢাকা-গুয়াংজু রুটের ফ্লাইট অবশ্যই লাভজনক হবে। দামের ক্ষেত্রে বর্তমান বাজার মূল্যের চাইতে কিছুটা সাশ্রয়ী হতে হবে।
সদ্য চালু হওয়া নয়াদিল্লী ফ্লাইটসহ বর্তমানে ১৬টি আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করে বাংলাদেশ বিমান। গুয়াংজু ও মদিনায় ফ্লাইট চালু হলে এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াবে ১৮টিতে।

Aviation News